এবার জাতীয় পরিচয়পত্র পাবেন আমিরাত প্রবাসীরা

প্রকাশ: ১৪ নভেম্বর ২০১৯      

ইউএই প্রতিনিধি

ফাইল ছবি

মালয়েশিয়ার পর এবার সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত প্রবাসীদের ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। আগামী ১৮ নভেম্বর থেকে আমিরাতের বাংলাদেশি প্রবাসীদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সরবরাহ কার্যক্রম শুরু করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এনআইডি সরবরাহ কার্যক্রম উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিতে আগামী শনিবার সংযুক্ত আরব আমিরাত যাবেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে অবস্থানকালে তিনি এ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন বলে গণমাধ্যমকে জানায় ইসি। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদাও এসময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে থাকার কথা রয়েছে।

দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল ইকবাল হোসাইন খান জানান, এনআইডি কার্যক্রম নিয়ে নির্বাচন কমিশন কাজ করছে। আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের প্রস্তুতি চলছে।

এনআইডি অনুবিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রবাসীরা আবেদন করার পর সেটা তাদের উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হবে। সেখান থেকে তদন্ত প্রতিবেদন আসলে, দূতাবাসে বসানো হেল্প ডেস্কের মাধ্যমে যোগ্য ব্যক্তির দশ আঙ্গুলের ছাপ ও চোখের আইরিশ নেওয়া হবে। এরপর সেটা ইসি সার্ভারে নিয়ে স্মার্ট কার্ড ছাপিয়ে হেল্প ডেস্কের মাধ্যমেই আবার বিতরণ করা হবে।

এনআইডি গ্রহণের ক্ষেত্রে কিছু কিছু প্রবাসীর বয়স ও স্থান নির্ণয়ে জটিলতা দেখা দিতে পারে জানিয়ে একাধিক প্রবাসী জানান, দেশে অনেকে দ্রুত বিদেশে যেতে পাসপোর্টে বয়স বাড়িয়েছেন। আবার কেউ কেউ নিজের এলাকার নাম গোপন করে ব্যবহার করেছেন ভিন্ন অঞ্চলের নাম। তাদের ক্ষেত্রে পাসপোর্টের সঙ্গে দেশের জন্ম নিবন্ধনের অমিল দেখা দিবে। আবার কেউ কেউ সার্টিফিকেট বয়সের সঙ্গে মিল রাখতে গিয়ে পাসপোর্টে নিজের বয়স কমিয়ে রেখেছেন। তারাও পড়তে পারেন বিপত্তিতে।

এ প্রসঙ্গে দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল ইকবাল হোসাইন খান সমকালকে বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য বারবার পরিবর্তন করার সুযোগ নাই। এখানে শতভাগ সঠিক তথ্য প্রদান করতে হবে। যাদের তথ্যগত সমস্যা আছে তাদের আগে থেকেই এসব তথ্য সংশোধন করে নিতে হবে। নির্বাচন কমিশন থেকে যেসকল দলিলপত্র আহবান করার হবে সেগুলো নির্ভুল ও সঠিক হতে হবে।

এনআইডি অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার সাইদুল ইসলাম জানান, প্রবাসীদের ভোটার হওয়ার জন্য মোট ছয়টি ডকুমেন্ট দিতে হবে। এগুলো হলো- পাসপোর্টের ফটোকপি, বিদেশি পাসপোর্টধারী হলে দ্বৈত নাগরিকত্ব সনদের ফটোকপি বা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতিপত্র, বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে শনাক্তকারী একজন প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকের পাসপোর্টের কপি, বাংলাদেশে বসবাসকারী রক্তের সম্পর্কের কোনো আত্মীয়ের নাম, মোবাইল নম্বর ও এনআইডি নম্বরসহ অঙ্গীকারনামা, বাংলাদেশে কোথাও ভোটার হননি মর্মে লিখিত অঙ্গীকারনামা ও সংশ্লিষ্ট দূতাবাসের প্রত্যয়নপত্র।

উল্লেখ্য, গত ৫ নভেম্বর অনলাইনে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত প্রবাসীদের ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম উদ্বোধন করে নির্বাচন কমিশন। আমিরাতে কার্যক্রম শুরু হবার পর সৌদি আরব, মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুর ও যুক্তরাজ্যে বসবাসরতরাও এই সুযোগ পাবেন।