ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশনে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

প্রকাশ: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

ব্রুনাই দারুসালামের বাংলাদেশ দূতাবাসে মহান শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি পালনের অংশ হিসেবে শুক্রবার দূতাবাস প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। এ সময় ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। পরে হাইকমিশনার এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) মাহমুদ হোসেন হাইকমিশনের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারী, বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ এবং ব্রুনাইয়ে বসবাসরত প্রবাসী বাঙালিদের নিয়ে দূতাবাস প্রাঙ্গণে অস্থায়ীভাবে নির্মিত শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

পরে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে হাইকমিশনের অভ্যর্থনা কক্ষে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় মহান রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পাঠানো বাণী পাঠ করেন শোনানো হয়।

সভায় 'বাংলা ভাষা এবং বাঙালি জাতিসত্ত্বার বিকাশ' বিষয়ক প্রবন্ধ পাঠ করেন ইউনিভার্সিটি ব্রুনাই দারুসসালামের ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ইফতেখার ইকবাল। তিনি প্রবন্ধে বাংলা ভাষার উৎপত্তি, ক্রমবিকাশ এবং বাঙালি জাতি গঠনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের ইতিহাস তুলে ধরেন।

উন্মুক্ত আলোচনা পর্বে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য নিয়ে বক্তব্য দেন ব্রুনাইয়ে বসবাসকারী বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ। বক্তারা একুশের শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে মহান একুশের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ গড়ার কাজে একযোগে কাজ করার ওপর জোর দেন।

সমাপনী বক্তব্যে হাইকমিশনার গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের অমূল্য ভূমিকা এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে অবদান রাখার জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঐক্যের ওপর জোর দেন।

হাইকমিশনার প্রবাসী বাংলাদেশি শিশু কিশোররা যাতে মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারে সে জন্য পরিবারে বাংলা ভাষার চর্চা অব্যাহত রাখার জন্য অভিভাবকদের প্রতি অনুরোধ জানান। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি