করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের সংক্রমণ রোধে সতর্ক রয়েছে কানাডা। 

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান দেশটির প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. থেরেসা ট্যাম। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া করোনাভাইরাসের নতুন যে ধরন নিয়ে বিশ্বব্যাপী আলোচনা চলছে কানাডায় এখনও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে আমরা কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি যা এটির এদেশে আসার আশঙ্কা কমাতে সহায়তা করছে।

যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকায় নতুন ধরনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। নতুন ধরনের এই ভাইরাস আরও দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে, যুক্তরাজ্যের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে একটি নতুন ধরনের এবং অধিক সংক্রামক করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ যুক্তরাজ্যের ক্ষেত্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে। জার্মানি, ইতালি, বেলজিয়াম, আয়ারল্যান্ড, তুরস্ক, কানাডা এবং ভারতসহ বিশ্বের অন্তত ৪০টি দেশ এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বিমান চলাচল সাময়িকভাবে স্থগিত করেছে। 

উল্লেখ্য, কানাডায় এ বছরের মার্চ মাসে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয় কলম্বিয়ায়। ভাইরাসটি শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই দেশটির সরকার নাগরিকদের জনস্বাস্থ্যর গুরুত্বের পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়নেও ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করে। 

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ ২৮ হাজার ৩৫৪ জন, মারা গেছেন ১৪ হাজার ৫৯৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৪ লাখ ৩৮ হাজার ৪৫২ জন।