স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর উযাদপনে অংশ নিতে ঢাকা সফরে আসা ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের মানুষকে স্বাধীনতা দিয়েছেন। একই সঙ্গে বিশ্বকে বলার জন্য বাংলাদেশকে একটি সুন্দর গল্প উপহার দিয়েছেন। 

বুধবার বিকেলে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উযাদপন মঞ্চে দেওয়া বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে চিকিৎসাবিদ্যায় গ্রাজুয়েশন করেছেন। বক্তব্যের শুরুতে তিনি ভুটানের রাজা, রানি ও তার দেশের জনগণের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের জনগণকে উষ্ণ অভিনন্দন জানান। ডা. লোটে শেরিং বলেন, বাংলাদেশকে তার সেকেন্ড হোম মনে হয়। বাংলাদেশ সফর তার জন্য সব সময়ই অত্যন্ত আনন্দের। বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে জীবনযাপন ও সংস্কৃতিতে অনেক সাদৃশ্য আছে।

তিনি আরও বলেন, তার বিশ্বাস প্রত্যেক দেশের মানুষই বিশ্বকে বলার জন্য নিজের একটি গল্প চায়। এই গল্প গর্বের সঙ্গে সবাইকে বলতে চায়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশকে স্বাধীনতা দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি বিশ্বকে বলার জন্য বাংলাদেশকে সুন্দর একটি গল্প উপহার দিয়েছেন। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে সেই গল্প শুনতে পেরে তিনি গর্বিত বোধ করছেন। 

এরপর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা অন্নদাশঙ্কর রায়ের বিখ্যাত কবিতার দুই লাইন 'যতকাল রবে পদ্মা যমুনা গৌরী মেঘনা বহমান/ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান।' আবৃত্তি করে শোনান ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং। বঙ্গবন্ধুর কূটনীতির ঐতিহাসিক মূলমন্ত্র 'সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়' ইংরেজি ও বাংলায় উচ্চারণ করে তিনি বলেন, ''বাংলাদেশ ও ভুটানের কূটনীতিতে অনেক মিল রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রনীতির সঙ্গে ভুটানের রাজার পররাষ্ট্রনীতির অনেকখানি মিল রয়েছে। ভূটানের রাজার পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে 'সবার সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক।''

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'গত ১০ বছরে বাংলাদেশ অর্থনীতিতে ব্যাপক উন্নতি করেছে। করোনা মহামারির মধ্যেও দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বোচ্চ জিডিপি বাংলাদেশের। এগুলো জানলে সত্যিই আনন্দে বুক ভরে যায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিপুল জনসংখ্যা ও ঘনবসতির দেশে যেভাবে কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবেলা করেছেন তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।' 

তিনি আরও বলেন, 'বাংলাদেশের মানুষ সত্যিই ভাগ্যবান যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নেতা হিসেবে পেয়েছেন। আমার বিশ্বাস বঙ্গবন্ধুও তার কন্যা শেখ হাসিনার অর্জনের জন্য তাকে নিয়ে গর্ববোধ করতেন। ভুটানের রাজা ও জনগণ বাংলাদেশের উত্তোরত্তর সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি প্রত্যাশা করে।'