স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় উচ্চতম ভবনে লাল-সবুজের বিশেষ আলোকসজ্জা করা হয়েছে।

সোমবার যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম এবং ক্যানারি ওয়ার্ফ গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী স্যার জর্জ আইকোবেসকু সিবিই লন্ডনের অভিজাত বাণিজ্যকেন্দ্র ক্যানারি ওয়ার্ফে অবস্থিত ওই ভবনে লাল-সবুজের বিশেষ আলোকসজ্জা উদ্বোধন করেন। 

এসময় বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের জাতীয় সংগীত বাজানোর সঙ্গে সঙ্গে উদ্বোধনী মঞ্চ ও সংলগ্ন ফোয়ারায় বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার লাল এবং সবুজ রঙে এক আকর্ষণীয় আবহ তৈরি করা হয়।

আলোকসজ্জার উদ্বোধনের পর হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে লন্ডনের ঐতিহাসিক টাওয়ার হেমলেটস-এর ক্যানারি ওয়ার্ফে লাল-সবুজের বিশেষ আলোকসজ্জার উদ্বোধন করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৯ সালে তার ঐতিহাসিক সফরসহ বেশ কয়েকবার লন্ডনের ঐতিহাসিক টাওয়ার হেমলেটস সফর করেছেন। এই টাওয়ার হেমলেটস যুক্তরাজ্যের বৃহত্তম ব্রিটিশ-বাংলাদেশি প্রবাসীদেরও আবাসস্থল।

হাইকমিশনার উল্লেখ করেন, ইতোমধ্যে লন্ডন হাইকমিশনের উদ্যোগে ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবে, টাওয়ার হেমলেটস মেয়রের অফিস ‘টাউন হল’-এ এবং ব্রমলে পাবলিক হলে বাংলাদেশের পতাকা উড়ানো হয়েছে। 

অনুষ্ঠানে ক্যানারি ওয়ার্ফ গ্রুপের চেয়ারম্যান স্যার জর্জ আইকোবেসকু আর্থ-সামাজিক উন্নয়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিগত এক দশকে বাংলাদেশের অসামান্য উন্নয়নের এবং যুক্তরাজ্যে প্রবাসী ব্রিটিশ-বাংলাদেশিদের সাফল্য ও কৃতিত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

তিনি বাংলায় ঐতিহাসিক স্লোগান ‘জয় বাংলা’ দিয়ে ৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধের চেতনার সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন। ক্যানারি ওয়ার্ফ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাওয়ার্ড ডাওবার, টাওয়ার হেমলেটস মেয়র জন বিগস, স্পিকার কাউন্সিলর মোহাম্মদ আহবাব হোসেন এবং সংস্কৃতি বিষয়ক কমিটির সদস্য কাউন্সিলর সাবিনা আক্তার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান। 

ক্যানারি ওয়ার্ফের আলোকসজ্জা লন্ডন হাইকমিশনের উদ্যোগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনেরই একটি অংশ যা ২৬ মার্চ থেকে শুরু হয়েছে। একইদিনে প্রখ্যাত ‌‌‌`লন্ডন আই’ আলোকিত হয়েছিল।

এছাড়া ২৬ মার্চ হাইকমিশনার টাওয়ার হেমলেটসের মেয়র এবং স্পিকার-এর সঙ্গে পূর্ব লন্ডনের বিখ্যাত আলতাব আলী পার্কে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে নয় মাসব্যাপী অনুষ্ঠানমালার শুভ উদ্বোধন করেন।

মন্তব্য করুন