দুইদিন আগেই বৌদ্ধপূর্ণিমার ছুটির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেট। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ ছুটির বিষয়ে অবগত করা হয় প্রবাসীদের। এরপরও প্রবাসীরা সেবা প্রত্যাশায় ভিড় করেন কনস্যুলেট বারান্দায়। সেবা না পেয়ে ফিরে যাওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু খবর পেয়ে কনস্যুলেটে আসা প্রবাসীদের জরুরি সেবা নিশ্চিত করেন ভারপ্রাপ্ত কনসাল জেনারেল মো. সাহেদুল ইসলাম।

বুধবার বন্ধের দিন সকালে দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেটের মূল ফটকে ভিড় করেন ২০ থেকে ২৫ জন সেবা প্রত্যাশী বাংলাদেশি। এদের কেউ এসেছেন প্রায় দেড়শ’ কিলোমিটার দূরের ফুজাইরাহ শহর থেকে। কেউ শারজা, কেউ আজমান শহরের প্রবাসী। দৈনন্দিন সেবা কার্যক্রম বন্ধ থাকা সত্ত্বেও ৪২ ডিগ্রি তাপমাত্রার মধ্যে তারা অপেক্ষা করতে থাকেন কনস্যুলেট বারান্দায়। অপেক্ষমান প্রবাসীদের অধিকাংশই নবায়ন করা নতুন পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে আসেন।

মূলত কনস্যুলেট বন্ধ থাকার ব্যাপারে অবগত না থাকায় বিপাকে পড়েন এসব প্রবাসীরা। বিষয়টি বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের নজরে এলে কনস্যুলেটের ভারপ্রাপ্ত কনসাল জেনারেল সাহেদুল ইসলামকে এসব প্রবাসীদের জরুরি সেবা দেওয়া জন্য অনুরোধ করা হয়। অপেক্ষমান প্রবাসীদের বিষয়টি জানতে পেরে ছুটির দিনেও তিনি কনস্যুলেটে ছুটে আসেন। তাৎক্ষণিকভাবে খুলে দেওয়া হয় সেবা প্রত্যাশীদের জন্য কনস্যুলেটের কাউন্টার। অল্প সময়ের মধ্যেই কনস্যুলেটের জরুরি সেবার আওতায় নতুন পাসপোর্ট গ্রহণ করেন অপেক্ষমান প্রবাসীরা।

সেবা প্রত্যাশী প্রবাসীরা বলেন, কনস্যুলেট বন্ধ আমরা জানতাম না। অনেক দূর থেকে নতুন পাসপোর্ট সংগ্রহ করার জন্য এসেছি। আজ নিতে না পারলে কোম্পানির ছুটি ও গাড়ি ভাড়া দুটোই বৃথা যেত। হঠাৎ জানতে পারলাম কনস্যুলেট কর্মকর্তা আসছেন। তিনি আমাদের জরুরি সেবা দেবেন। যেই কথা, সেই কাজ। যারা নতুন পাসপোর্টের জন্য এসেছি, প্রত্যেকে পাসপোর্ট নিতে পেরেছি। জরুরি ভিত্তিতে আমাদের সেবা দেওয়ায় কনস্যুলেটের কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেটের ভারপ্রাপ্ত কনসাল জেনারেল মো. সাহেদুল ইসলাম বলেন, বৌদ্ধ পূর্ণিমার জন্য কনস্যুলেট বন্ধ। অপেক্ষমান প্রবাসীদের কথা জানতে পেরে কনস্যুলেট স্টাফদের বিষয়টি অবগত করি। নিজেও তাৎক্ষণিকভাবে কনস্যুলেটে ছুটে আসি। এসেই অপেক্ষমান প্রবাসীদের জরুরি সেবা নিশ্চিত করি।

তিনি আরও বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশিরা কনস্যুলেট সেবা পেতে ও সেবা সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য জানতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কনস্যুলেট ও দূতাবাসের অফিসিয়াল পেজগুলো অনুসরণ করতে পারেন। এছাড়াও কনস্যুলেটের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরের মধ্যেও তথ্য আদান-প্রদানসহ জরুরি সেবা নিতে পারবেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সেবা ও কার্যদিবস সম্পর্কেও অবগত করা হয়। অফিসিয়াল পেজগুলো অনুসরণ করলে বিড়ম্বনা এড়াতে পারবেন প্রবাসীরা।

মন্তব্য করুন