সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রায় ১০ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশির বসবাস। দেশটিতে থাকা বাংলাদেশিদের জন্য ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অথরিটির বেঁধে দেওয়া নিয়মের মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের পর এবার ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট সেবাও চালু করেছে বাংলাদেশ। 

দেশটির আবুধাবিতে বাংলাদেশ দূতাবাস ও দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট এই সেবা চালু করে। ই-পাসপোর্ট সেবার দিক থেকে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ৮০টি মিশনের মধ্যে যা অষ্টম ও নবম মিশন। নতুন বছরের শুরুতে যা বাড়তি প্রাপ্তি হিসেবে দেখছেন প্রবাসীরা।

দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট সূত্রে জানা গেছে, পাসপোর্ট সেবায় বহির্বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলছে বাংলাদেশ। মধ্যপ্রাচ্যে প্রথম আমিরাত প্রবাসীরাই ই-পাসপোর্ট করার সুযোগ পাচ্ছেন। এই সেবা প্রবাসীদের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে আবুধাবি ও দুবাই ছাড়াও দেশটির আল-আইন এবং ফুজাইরাহ শহরে আলাদাভাবে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। 

বাংলাদেশি নাগরিকরা সুবিধামতো পাঁচ ও দশ বছর মেয়াদে ৪৮ ও ৬৮ পৃষ্ঠার ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এ পাসপোর্টের চিপে ব্যক্তির তথ্য ছাড়াও থাকবে ফিংগার প্রিন্ট, ফেস ইমেজ, চোখের আইরিসের তথ্য ও স্বাক্ষর। পলিকার্বোনেট ডাটা পেজে থাকবে নিরাপত্তা, স্থায়িত্ব ও ব্যক্তিগত তথ্যাদি।

দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন বলেন, ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে কোনো ছবি সংযোজন বা কাগজপত্র সত্যায়ন করার প্রয়োজন হবে না। শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র বা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ দিয়ে আবেদন করা যাবে। ই-পাসপোর্টে সাধারণ আবেদনকারী, শিক্ষার্থী ও সাধারণ শ্রমিক তিনটি শ্রেণিবিন্যাস করা হলেও প্রাথমিক ধাপে আমিরাতে শুধু সাধারণ আবেদন গ্রহণ করা হবে।