গত কয়েক বছরের ধারবাহিকতায় এবারও বাংলাদেশের ৫২তম স্বাধীনতা দিবসে ব্রাম্পটন সিটি হলে বাংলাদেশের পতাকা উড়েছে। ব্রাম্পটন বাংলাদেশি কমিউনিটি সার্ভিসের (বিবিসিএস) আয়োজনে এই পাতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগিতা করে সিটি অফ ব্রাম্পটন।

শীতের কনকনে ঠান্ডা, বরফ শীতল বৃষ্টি উপেক্ষা করে ব্রাম্পটন ও আশেপাশের শহরের প্রায় দুই শতাধিক বাংলাদেশি অনুষ্ঠানে অংশ নেন। 

বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সিটি অফ ব্রাম্পটন এর মেয়র পেট্রিক ব্রাউন। সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি মেয়র প্যাট ফরটিনি, কাউন্সিলর গুরপ্রিত ডিলন। অন্যান্যের মধ্যে কানাডা সরকারের মন্ত্রী এবং লিবারেল পার্টির এম.পি কমল খেরা, এম.পি সোনিয়া সিধু, এম.পি রুবী সোহাতা এবং ওন্টারিও পার্লামেন্ট এর বিরোধীদলীয় ডেপুটি লিডার এম.পি.পি সারা সিং এ সময় উপস্থিত ছিলেন। 

বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন শেষে মেয়র ব্রাউন তার শহরে বাংলাদেশিদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবদানের কথা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশি খাবার এবং সংস্কৃতির প্রশংসা করে তিনি বলেন, অতীতের মতো ভবিষ্যতেও তিনি ও তার সিটি সবসময় বাংলাদেশিদের পাশে থাকতে গর্ববোধ করবে। 

কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রী কমল খেরা বাংলাদেশর নারীর ক্ষমতায়ন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং বিশেষ ভাবে দেশত্যাগে বাধ্য ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের সরকারের প্রশংসা করেন। তিনি আরও বলেন, কানাডাকে বাংলাদেশের অন্যতম বাণিজ্যিক এবং উন্নয়ন অংশীদার হিসেবে চিহ্নিত করে তার সরকার সবসময় প্রাধান্য দিয়ে আসছে।

উল্লেখ্য, কমল খেরা ২০১৯ সালে কানাডা সরকারের পক্ষে বাংলাদেশ ভ্রমণ করেন কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কানাডা সরকারের আর্থিক সাহায্যে পরিচালিত কর্মকাণ্ড পরিদর্শনের জন্য।

বিবিসিএস এর পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানে শিশুদের জন্য ফেস পেইন্টিং, বেলুন, চকোলেট এবং সবার জন্য নানা ধরনের নাস্তা-কফির ব্যাবস্থা করা হয়।

বিবিসিএস এর পক্ষ আমন্ত্রিত সব অতিথিকে বাংলাদেশের পতাকার ডিজাইন করা স্কার্ফ উপহার দেওয়া হয় যা পেয়ে তারা উচ্ছাসিত হন আগ্রহ নিয়ে পরিধান করেন।