যুক্তরাষ্ট্রের মেইন অঙ্গরাজ্যের পাসাদামকেগ শহর এখন অচল প্রায়। শুধুমাত্র একজন নারী কর্মী চাকরি থেকে ইস্তফা দেওয়ায় ওই শহরটির কর্তৃপক্ষ চরম সমস্যায় পড়েছে। ছুটি চেয়ে ব্যর্থ হয়ে চাকরি ছেড়েছেন ক্রিস্টেন বুচার্ড নামের একজন সাধারন কেরানি। আর তাতেই সব কাজ বন্ধ হয়ে অচল হয়ে পড়েছে শহর। বিপাকে পড়েছে শহর কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, ক্রিস্টেন বুচার্ড ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে পাসাদামকেগ শহরের কেরানি হিসেবে নিয়োগ পান। এই নারীর প্রথম দায়িত্ব ছিল ওই বছরের নভেম্বরের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করা। এ কারণে তাকে প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের পরে শহরের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজের দায়িত্ব পড়ে ক্রিস্টেন বুচার্ডের ওপর। তাকে উপ-কাষাধ্যক্ষ, পোষা প্রাণীর সনদ দেওয়া, শহরের গুরুত্বপূর্ণ নথি সংরক্ষণ, যানবাহন নিবন্ধন এবং অঙ্গরাজ্যের অভ্যন্তরীণ মৎস্য ও বন্য প্রাণী বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এত সব কাজের চাপে ক্রিস্টেন বুচার্ডের ছুটি নেওয়ার সুযোগ ছিল না। বাধ্য হয়ে গত মাসের শুরুর দিকে তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে দুই সপ্তাহের ছুটি  চেয়ে আবেদন করেন। তাঁর অনুপস্থিতিতে শহরের এত সব গুরুত্বপূর্ণ কাজ করার কোনো কর্মী না থাকায় কর্তৃপক্ষ তার ছুটি মঞ্জুর করেননি। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে চাকরি ছেড়ে দেন তিনি।

ক্রিস্টেন বুচার্ড চাকরি ছেড়ে চলে যেতেই পাসাদামকেগ শহরের সরকারি সব কাজ বন্ধ হয়ে যায়। শহরের কোন নথি কোথায় আছে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, কেউ কোনো প্রাণীর প্রতি নির্যাতন চালালে সমাধান হচ্ছে না, যানবাহনের সনদ দেওয়া বন্ধ। এতে অচল হয়ে পড়েছে শহরটি।

পাসাদামকেগ শহর কর্তৃপক্ষ জানায়, অফিসে ক্রিস্টেন বুচার্ডের দায়িত্ব পালন করার মতো কোনো কর্মী নেই। তাই তার মতো একজন কর্মী না পাওয়া পর্যন্ত সরাসরি অফিস বন্ধ থাকবে।