অবৈধপথে ইতালি যাওয়ার পথে নিখোঁজ হওয়া মাদারীপুরের দুই যুবকের সন্ধান মেলেনি দুই মাসেও। এ ঘটনায় মামলা হলে এক দালালকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার নথি ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মাদারীপুর শহরের পাকদী এলাকার মশিউর রহমান মিলন ও মোহাম্মদ হোসেনকে ইতালি পাঠানোর কথা বলে তাঁদের পরিবারের কাছ থেকে কয়েক দফায় ৩৬ লাখ টাকা নেয় লিয়াকত সরদার ও বোরহান মোল্লা নামের মানব পাচারকারী একটি সিন্ডিকেট।

পরে তাদের গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ইতালির উদ্দেশে তুরস্কে পাঠানো হয়। এরপর থেকেই পরিবারের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ মিলন ও মোহাম্মদ হোসেনের। পরে দালাল লিয়াকত ও বোরহানের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা ভয়ভীতি দেখায়। এতে বাধ্য হয়ে ১৭ মে মাদারীপুর মানব পাচার অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে ৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন মিলনের ভাই অনিক মিয়া।

সেই মামলায় রোববার রাতে দালাল বোরহানকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। সে মাদারীপুর সদর উপজেলার সাবেক গোবিন্দপুর গ্রামের চান মিয়া মোল্লার ছেলে। তাকে সোমবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। নিখোঁজ যুবকরা সম্পর্কে খালাতো ভাই। মিলনের ভাই অনিক মিয়া বলেন, আমরা আমার ভাইদের সন্ধান আর দালালদের বিচার চাই।

মাদারীপুর সদর থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মামুন মিয়া বলেন, মানব পাচারের ঘটনায় আদালতে মামলা হয়েছে। সেই মামলার প্রাথমিক তদন্তে মানব পাচারের সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযান চালিয়ে বোরহান নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।