যশোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগ সভাপতি মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরীকে হত্যার হুমকি ও গালিগালাজের ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে থানায় আটজনের নামে মামলা হয়েছে। বিকেলে পুলিশ এ মামলার এজাহারভুক্ত তিন আসামিকে গ্রেপ্তারের পর সন্ধ্যায় আদালত তাদেরকে জামিন দেন।

কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তাজুল ইসলাম জানান, ২৭ জুন রাত আড়াইটার দিকে মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরীর শহরের খালধার রোডের বাড়ির সামনে গিয়ে সন্ত্রাসীরা গালিগালাজ ও হত্যার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি মঙ্গলবার মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে।

যশোর পুলিশের মুখপাত্র ও জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রুপন কুমার সরকার জানান, মামলা রেকর্ড হবার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ডিবি ও থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে শহরের পুরাতন কসবা কাঁঠালতলা এলাকা থেকে তিন আসামিকে আটক করে।

আটকরা হলেন ওই এলাকার বাবুল (৪৫), নূরনবী (৪০) ও তাপস (৩৫)। মামলার অপর আসামিরা হলেন শহরের কাজীপাড়ার তৌহিদ চাকলাদার ফন্টু (৪৫), লোন অফিসপাড়ার আশিকুল ইসলাম বাঁধন (৪০), কাজীপাড়ার তেঁতুলতলার রওশন ইকবাল শাহী (৩২), রেলগেট তেঁতুলতলার ফাহমিদ (২৫) ও কাজীপাড়ার মেহেদী হাসান রনি (৩০)।

এদিকে গ্রেপ্তারের পরপরই পুলিশ তিনজনকে আদালতে পাঠায়। শুনানি শেষে সন্ধ্যায় যশোর সদর সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মঞ্জুরুল ইসলাম তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। জামিনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহবুব সরকার লালটু।

মামলার এজাহারে বাদী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী উল্লেখ করেছেন, আসামি ফন্টুর অপরাধ কর্মকাণ্ডের বিরোধিতা করায় তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে মেরে ফেলার পাঁয়তারা করে আসছেন। একই কারণে তারা দুইটি গাড়িতে করে তার বাড়ির সামনে এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন।

এ সময় তিনি ঘর হতে বের হয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা তাকে দিবালোকে খুন করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর গাড়ি দুটি ফের তার বাড়ির সামনে এসে ওই সন্ত্রাসীরা তাকে ‘শাহীন চাকলাদারের রাজনৈতিক বাধা’ উল্লেখ করে খুনের হুমকি দিয়ে বলে যে, পথ পরিষ্কার করে ফেলব। খবর পেয়ে পুলিশের টহল গাড়ি এসে পড়ায় সন্ত্রাসীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে যায়।

উল্লেখ্য, আসামি তৌহিদ চাকলাদার ফন্টু জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও যশোর-৬ আসনের সাংসদ শাহীন চাকলাদারের চাচাতো ভাই। উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ দলীয় গ্রুপিংয়ে শাহীনের প্রতিপক্ষ। উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ চৌধুরী জেলা যুবলীগের সভাপতি ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদেও আছেন।