উয়েফা নেশন্স লিগে চেক রিপাবলিককে পেয়ে গোল উৎসবে মেতে উঠেছে রোনালদোর পর্তুগাল। প্রাগের ফর্চুনা অ্যারেনায় গ্রুপ পর্বের ম্যাচটি ৪-০ গোলে জিতেছে পর্তুগাল। এই জয়ে নেশন্স লিগের ফাইনালে ওঠার পথে এগিয়ে গেল প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়নরা।

কিছুদিন আগেই রোনালদো জানিয়েছেন, আরও বছর দুয়েক জাতীয় দলের হয়ে খেলতে চান তিনি। সেটি যে শুধুই বলার জন্যই বলা নয়, তার প্রমাণ মিললো উয়েফা নেশন্স লিগের ম্যাচে। নাক দিয়ে রক্ত ঝরলেও মাঠ ছেড়ে যাননি পর্তুগিজ যুবরাজ, খেলেছেন পুরো ম্যাচ। গোল না পেলেও একটি অ্যাসিস্ট করেছেন তিনি। ম্যাচে জোড়া গোল করেছেন দিয়োগো দালোত। বাকি গোল দুটি করেন ব্রুনো ফার্নান্দেজ ও দিয়োগো জটা।

রোনালদোর হাত ধরে ম্যাচের শুরুটা দারুণ হতে পারত পর্তুগালের। তবে ষষ্ঠ মিনিটে ডান দিক থেকে ব্রুনো ফার্নান্দেজের ডি-বক্সে বাড়ানো বলে প্রতিপক্ষের চ্যালেঞ্জের মুখে শটই নিতে পারেননি তিনি। আট মিনিট পর দুর্ভ্যাগ্যের শিকার হন রোনালদো। সতীর্থের উঁচু করে বাড়ানো বলে হেড করতে লাফিয়ে ওঠেন রোনালদো, একই সময়ে এগিয়ে এসে বল ক্লিয়ার করতে ঘুষি হাঁকালেন গোলরক্ষক। তার হাতে পর্তুগাল অধিনায়ক নাকে প্রচণ্ড আঘাত পান, নাক দিয়ে রক্ত পড়তে দেখা যায়। তবে কিছুক্ষণ চিকিৎসা নেওয়ার পর ফের খেলা শুরু করেন তিনি।

৩৩ মিনিটে গোলের দেখা পায় পর্তুগাল। ব্রুনোর বাড়ানো ক্রসে পা ছোঁয়াতে পারেননি কেউই। বল চলে যাচ্ছিল মাঠের বাহিরে। এ সময়ে বাইলাইন থেকে কাটব্যাক করেন রাফায়েল লিয়াও। বিনা বাঁধায় জোরাল শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন দালোত। ৩৯ মিনিটে ফের সুযোগ নষ্ট করেন রোনালদো। ব্রুনোর বাড়ানো ক্রস জোরের সঙ্গে ভলি করতে গিয়ে উড়িয়ে মারেন তিনি।  

প্রথমার্ধের অতিরিক্ত যোগ করা সময়ে ম্যাচের দ্বিতীয় গোল করেন ব্রুনো। মারিও রুইয়ের ক্রসে ডান পায়ের শটে আসরে নিজের প্রথম গোল করেন ইউনাইটেড মিডফিল্ডার।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে সাত মিনিটের মধ্যে নিজেদের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় গোল করেন দালোত। ব্রুনোর পাস ধরে জায়গা বানিয়ে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে গোলটি করেন তিনি। আর ম্যাচের ৮২ মিনিটে গিয়ে চেক রিপাবলিকের জালে শেষ গোলটি করেন লিভারপুলের তারকা জটা।

এই জয়ের পর পাঁচ ম্যাচে তিন জয় ও এক ড্রতে ১০ পয়েন্ট নিয়ে এ লিগের দুই নম্বর গ্রুপের শীর্ষস্থান দখল করেছে পর্তুগাল। একইদিন সুইজারল্যান্ডের কাছে হেরে যাওয়া স্পেন ৮ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে দুই নম্বরে। চার পয়েন্ট নিয়ে নিচে নেমে যাওয়ার শঙ্কায় রিপাবলিক।