ম্যাচের সবে শুরু। ঘড়ির কাটা দুই মিনিটও ঘোরেনি। এর মধ্যেই গোল করে এগিয়ে যাওয়া সুযোগ হারান যুক্তরাষ্ট্রের নাম্বার টেন ক্রিস্টিয়ান পুলিসিক। তিনি ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা’ হতে না পারলেও ডাচম্যান মেম্পিস ডিপাই নিঁখুত শট নিতে ভুল করেননি। ম্যাচের ১০ মিনিটে তার এনে দেওয়া শুরুয় ৩-১ গোলের জয়ে মাঠ ছেড়েছে নেদারল্যান্ডস। মার্কিনদের বিদায় করে উঠে গেছে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে।

তরুণ প্রজন্মের যুক্তরাষ্ট্রকে সমীহ করে তিন সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার নিয়ে কৌশল সাজান কিংবদন্তি ডাচ কোচ লুইস ভ্যান গাল। মার্কিনরা আক্রমণে উঠলেও যাতে দেয়াল ভাঙতে না পারে, কোনঠাসা হলে যাতে দুই ফুলব্যাক আক্রমণ শানাতে পারেন এটাই ছিল তার তত্ত্ব। তার ওই থিওরি ভুল হয়নি। প্রথমার্ধেই ফেবারিট হয়ে আসা ডাচরা ২-০ গোলের লিড নেয়। 

ডিপাইয়ের প্রথম গোলের পর দলকে প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে দ্বিতীয় লিড এনে দেন ডেভি ব্লাইন্ড। ম্যাচের শুরুতে ডিপাইকে গোল করান ইন্টার মিলানে খেলা রাইট ব্যাক ডেঞ্জেল ডামফ্রাইস। ব্লাইন্ডকে দিয়েও গোল করান ২৬ বছর বয়সী এই ফুলব্যাক। যেন ডাচ কোচের কষা ছকে পা দিয়ে পিছিয়ে পড়া।   

যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ডাচদের জয় উদযাপন। ছবি: এএফপি

প্রথমার্ধে পিছিয়ে পড়ার পর আক্রমণ ভিন্ন পথ খোলা ছিল না যুক্তরাষ্ট্রের। বলের দখল নিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে গোল পোস্টে ছয়টি ভালো শট নেয় মার্কিনরা। কিন্তু ডাচ গোলরক্ষক নোপার্টে আটকে যাচ্ছিল অ্যাটাক। ম্যাচের ৭৬ মিনিটে হাজি রাইট গোল করে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন। ব্যবধান কমিয়ে করেন ২-১। তাদের সামনে তখন কামব্যাকের স্বপ্ন। 

ওই স্বপ্নে ‘ডালপালা’ গজানোর আগেই ভেঙে দেন ডামফ্রায়েস। তিনি ৮১ মিনিটে গোল করে দলকে বড় জয় এনে দেন। সবার আগে ডাচদের তুলে নেন বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। কমলা জার্সির দলটির এখন প্রতিপক্ষের অপেক্ষা। শনিবার রাতের ম্যাচে মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা ও অস্ট্রেলিয়া। ওই ম্যাচের জয়ী দলের বিপক্ষে সেমিফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে নামবে ভ্যান গালের শিষ্যরা।