রংপুরে ভ্যানে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় কিশোর চন্দ্র (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের বালাপাড়া এলাকায় এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ভ্যানচালক নরেশ চন্দ্র।

নিহত কিশোর চন্দ্রের বাড়ি জেলার তারাগঞ্জ উপজেলার ইকরচালী ইউনিয়নের সাতঘরিপাড়া গ্রামে। তিনি বর্গা চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। তার স্ত্রীসহ দশ বছরের এক সন্তান রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে পুলিশ জানায়, কৃষক কিশোর চন্দ্রের বাড়িতে নতুন পাকা ঘর নির্মাণের কাজ চলছিল। মাত্র দুই বস্তা সিমেন্টের প্রলেপ দিলেই পাকাঘর নির্মাণের কাজ শেষ হতো। তাই শুক্রবার সন্ধ্যায় তারাগঞ্জ বাজার থেকে ভ্যানে করে সিমেন্টের বস্তা নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। ভ্যানটি বালাপাড়া এলাকায় আসলে রংপুরগামী যাত্রীবাহী একটি বিআরটিসি বাস তাদের সজোরে ধাক্কায় দেয়। এতে ভ্যানসহ কিশোর চন্দ্র ও ভ্যানচালক নরেশ চন্দ্র সড়কে ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। রাত ৮টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কিশোর চন্দ্রের মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, বালাপাড়া মোড়ে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক ও বালাপাড়া-বরাতি সড়ক দখল করে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয়রা শুক্র ও সোমবার হাটে ধান কেনাবেচা করছেন। এতে সড়ক সংকুচিত হয়ে যাওয়ার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

তারাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফারুক আহম্মদ বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার গুরুতর আহত একজন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন বলে শুনেছি। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ অভিযোগ করেনি।