দশ দফা দাবিতে পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের মধ্যেও উত্তরাঞ্চলের প্রবেশ দ্বার সিরাজগঞ্জ জেলার অভ্যন্তরে বৃহস্পতিবার দিনভর বাস চলাচল করেছে। 

শহরের এম.এ.মতিন বাস টার্মিনাল থেকে অল্প দূরত্বের হাটিকুমরুল মোড় পর্যন্ত যানবাহন দিনভর চলাচল করলেও জেলা শহর থেকে রাজশাহী, পাবনা ও রংপুর অভিমুখে দূরপাল্লার বাস চলাচল করেনি। মাত্র ২০ কিলোমিটার দূরত্বের সিরাজগঞ্জ রোড পর্যন্ত বাস চলাচলে যাত্রী বিড়ম্বনা ও দুর্ভোগ কিছুটা কমলেও বিপাকে পড়েছেন দূরপাল্লার যাত্রীরা। 

এদিকে, জেলার পরিবহন সেক্টরের সঙ্গে ঢাকার মহাখালীর কতিপয় মালিক নিয়ন্ত্রিত বেশ ক’টি সার্ভিস বাস যাত্রী নিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ঢাকার দিকে ছেড়ে যেতে দেখা গেছে। জেলার অভ্যন্তরে কাজিপুর-বেলকুচি রুটেও নিয়ন্ত্রিতভাবে দিনভর বাস চলাচল করেছে।

জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সুলতান তালুকদার বলেন, ‘ধর্মঘটের কারণে ঢাকার বাসগুলো আটকা পড়ায় তারা যাত্রী নিয়ে নিজ গন্তব্যস্থলে ফিরে গেছে। জেলা শহর থেকে সিরাজগঞ্জ রোড, বেলকুচি ও কাজিপুর রুটে কিছু বাস চলল করলেও দূরপাল্লার কোনো বাস চলাচল করেনি।’

জেলার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (অ্যাডমিন) সালেকুজ্জামান খান বলেন, সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাড়ে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের মুলিবাড়ি, সয়দাবাদ ও কড্ডায় জেলা পুলিশের পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশ প্রতিদিনের মতো আজও তৎপর রয়েছে। তবে, বিশেষ কোন চেকপোস্ট নেই।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি বদরুল আলম বলেন, ‘জেলা শহর থেকে দু’একটি বাস সিরাজগঞ্জ রোডে এলেও রাজশাহীর দিকে চলছে না। তবে দু’একটি বাস জেলা থেকে বগুড়ায় গিয়েছে।’

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান বাচ্চু বলেন, ‘জেলা সদর, কাজিপুর, কামারখন্দ, উল্লাপাড়া, শাহজাদপুর, বেলকুচি উপজেলা এবং এনায়েতপুর ও সালঙ্গা থানায় কমপক্ষে আট-দশটি গায়েবি মামলায় জ্ঞাত-অজ্ঞাত মিলে দেড় সহস্রাধিক বিএনপির লোকজনকে আসামি করা হয়েছে। সদর, কামারখন্দ, তাড়াশ, চৌহালী ও কাজিপুরে দশ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া বায়গঞ্জের পাঙ্গাসীতে বাড়ি বাড়ি তল্লাশি করা হচ্ছে। আমরা এরই মধ্যে প্রায় দশ হাজার নেতাকর্মী সিরাজগঞ্জ থেকে রাজশাহী চলে এসেছি। আসার পথে সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ-মান্নান নগরে পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়ে বাসে বাসে তল্লাশিও চালাচ্ছে। তিন-চারটি কর্মীবাহী বাসও আটক করেছে পুলিশ।’

তাড়াশ থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বলেন, জেলার তাড়াশে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের মান্নাননগর ৯ নম্বর ব্রিজের নিকট উপজেলা ও ট্রাফিক পুলিশের যৌথ বিশেষ চেকপোস্ট রয়েছে। বৈধ কাগজপত্র না থাকায় গতকাল ৩টি বাস আটক করেছে ট্রাফিক পুলিশ।’

সিরাজগঞ্জের পুলিশ সুপার আরিফুল ইসলাম মণ্ডল বলেন, ‘পুলিশ সাধারণত অযথা কাউকে হয়রানি বা গ্রেপ্তার করে না। যাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ঘটনায় মামলা রয়েছে, তাদের কেউ কেউ গ্রেপ্তার হয়েছেন। মহাসড়কে বা আঞ্চলিক সড়কে চলাচলরত যানবাহনের বৈধ কাগজপত্র বা রুট পারমিট আছে কি-না, সেটি দেখাও পুলিশের রুটিন ওয়ার্ক।