সুন্দরগঞ্জে ব্রিজ আছে রাস্তা নেই!

প্রকাশ: ১২ মে ২০১৯     আপডেট: ১২ মে ২০১৯      

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

সুন্দরগঞ্জের একতা বাজার-বিরহিম খেয়াঘাটের ওপর সড়কহীন ব্রিজ- সমকাল

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বেকরির চর গ্রামের একতা বাজার-বিরহিম খেয়াঘাটের ওপর ব্রিজ আছে কিন্তু দুপাশে কোনো সড়ক নেই। সড়কবিহীন ব্রিজটি প্রায় ২ বছর ধরে অকেজো হয়ে পড়ে আছে।

বন্যার স্রোতে প্রতিবছর বাঁশের সাঁকো ভেসে যাওয়ার কারনে এলাকাবাসির দাবিতে ২০১৭ সালে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের আওতায় ২৭ লাখ ৯৪ হাজার ২৫৬ টাকা ব্যয়ে ইজ্জত আলীর বাড়ি সংলগ্ন সড়কে ৩০ ফুট দীর্ঘ আরসিসি ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়। নির্মাণের ৬ মাস পরেই বন্যায় রিজটির দুই পাশের সংযোগ সড়ক ধসে বন্যার স্রোতে ভেসে যায় এবং এবং ব্রিজটির একপাশ দেবে যায়। তখন থেকে এখন পর্যন্ত ব্রিজটির সংযোগ সড়ক মেরামত করা হয়নি। ফলে ব্রিজটির উপর দিয়ে পথচারি এবং যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে চরাঞ্চলবাসির কোন কাজে আসছে না ব্রিজটি।

২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের আওতায় ২৭ লাখ ৯৪ হাজার ২৫৬ টাকা ব্যয়ে বেকরির চর গ্রামের ইজ্জত আলীর বাড়ি সংলগ্ন সড়কে ৩০ ফুট দীর্ঘ আরসিসি ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়।

বেকরীর চর গ্রামের বাবুল হোসেন ও মতিয়ার রহমান জানান, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ব্রিজটি নির্মাণের ৬ মাস পরেই বন্যার স্রোতে দুই পাশের সংযোগ সড়ক ভেসে যায়। যার কারনে ব্রিজটির উপর দিয়ে চলাচল করা যাচ্ছে না। দুই বছর ধরে আমরা চরাঞ্চলবাসি আবার কষ্ট করে নৌকা ও পায়ে হেঁটে পাড়ি দিচ্ছি। বিশেষ করে স্কুল ও কলেজগামি শিক্ষার্থীদের অনেক কষ্ট হচ্ছে।

বেলকা ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহিম খলিলুল্ল্যাহ সমকালকে জানান, ব্রিজটির দুই পাশের সংযোগ সড়ক মেরামতের জন্য কয়েকবার উপজেলা প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে তাগাদা দেয়া হলেও আজ তা মেরামত করা হয়নি। কর্মসৃজন প্রকল্পের মাধ্যমে ব্রিজের সংযোগ সড়ক মেরামতের পরামর্শ দিয়েছে পিআইও।

উপজেলা প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তা নরুন্নবী সরকার জানান, বন্যার স্রোতে ব্রিজটির সংযোগ সড়ক ভেসে গেছে। বরাদ্দ না থাকায় তা মেরামত করা সম্ভব হয়নি। তবে চেয়ারম্যানকে কর্মসৃজন প্রকল্পের মাধ্যমে ব্রিজের সড়কটি মেরামতের জন্য পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে। চরের বালু মাটির কারনে বার বার সড়কটি বন্যায় ভেসে যাচ্ছে।