দিনাজপুরে ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী

প্রকাশ: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০   

দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে দিনের পর দিন জোর ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে; এতে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছে সে।

অভিযুক্ত আকরাম আলী (৪৫) উপজেলার আন্ধারমুহা মিস্ত্রি পাড়া এলাকার সেকেন্দার আলীর ছেলে। এই ঘটনায় শুক্রবার রাত ১০টার দিকে চিরিরবন্দর থানায় ওই পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীর মা মামলা করলে আকরাম আলীকে শনিবার সকালে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলার এজাহারে ওই ছাত্রীর মা বলেন, আমার মেয়ে স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে। আমার স্বামী পেশায় একজন কাঠ মিস্ত্রি। আমি নিজেও একটি নার্সারিতে কাজ করি। আমরা সকাল হলেই কাজ করতে বাড়ির বাইরে যাই। এই সুযোগে বাড়ি ফাঁকা পেয়ে আকরাম আলী আমার পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়েকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার জোর করে ধর্ষণ করে।

নির্যাতনের শিকার শিশুটির মা অভিযোগ করেন, গত ৫ আগস্ট আমরা কাজে যাওয়ার পর আমার মেয়ে আমাদের শোবার ঘরের মেঝেতে শুয়ে থাকা অবস্থায় আকরাম আলী চুপিসারে আমাদের ঘরে প্রবেশ করে। আমাদের ঘরে প্রবেশ করে আমার মেয়েকে জড়িয়ে ধরলে আমার মেয়ে চিৎকার করতে চাইলে তার মুখ চেপে ধরে। ওই সময় আকরাম আলী আমার মেয়েকে কিছু দিনের মধ্যে বিয়ে করবে জানিয়ে আমার মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে।

তিনি বলেন, গত ১ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় আমার মেয়ে বমি করতে ধরলে এবং মাথা ঘুরছে জানালে আমি স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। ডাক্তারি চেকআপ শেষে আমার মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে চিরিরবন্দর থানার ওসি (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার বলেন, আকরাম আলী নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করে অন্তঃসত্ত্বা করার অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়। মামলা হওয়ার পর থেকেই আমরা আসামিকে ধরতে তৎপরতা চালাই। পরে শনিবার সকালে আসামি আকরাম আলীকে গ্রেপ্তার করে কোর্টে পাঠানো হয়।