সেই বন বিড়ালটি মারা গেছে

প্রকাশ: ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

ধরার পর গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছিল বিড়ালটিকে -সমকাল

ধরার পর গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছিল বিড়ালটিকে -সমকাল

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার সীমান্ত এলাকায় উদ্ধার হওয়া বন বিড়ালটি মারা গেছে। সোমবার সকালে বিড়ালটির মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পঞ্চগড় সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে রোববার রাতে তঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিনের শিবচন্ডী এলাকায় উদ্ধার বিড়ালটি  বন বিভাগের লোকজন খাঁচায় ঢুকানোর সময় মারা যায়। তার আগে দুপুরে ভারতীয় সীমান্তবর্তী শিবচন্ডি গ্রামের একটি চা বাগান থেকে স্থানীয় লোকজন মেছোবাঘ মনে করে ওই বন বিড়ালটি আটক করেন। পরে বন বিড়ালটিকে প্রথমে একটি গাছের সঙ্গে ও পরে একটি খুঁটিতে বেঁধে রেখে বনবিভাগের কর্মকর্তাদের খবর দেওয়া হয়।

স্থানীয়রা জানায়, সীমান্তবর্তী শিবচন্ডি গ্রামের তাপস ও আলম নামে চা বাগানের দুই শ্রমিক প্রথমে বন বিড়ালটি দেখতে পান। মেছো বাঘ মনে তারা অন্য শ্রমিকদের ডাক দেন। এক পর্যায়ে ধাওয়া করে বিড়ালটি আটক করা হয়। 

দেবনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মহসীন আলী জানান, এর আগে দেবনগর ইউনিয়নের উষাপাড়া ও বাদিয়াজোত সীমান্ত এলাকার পরিত্যক্ত চা বাগানে বাঘ আতঙ্ক দেখা দেয়। অভিযানের পরেও বাঘের দেখা পাওয়া যায়নি। এজন্য মেছোবাঘ আটকের খবরেও মানুষ ভিড় করতে শুরু করে।

পঞ্চগড় সামাজিক বনায়ন নার্সারি ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আব্দুল হাই বলেন, বন বিড়ালটিকে ধরার সময় ধাওয়া করায় দুর্বল হয়ে পড়েছিল। এছাড়া সারাদিন কিছু না খাইয়ে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছিল। দুর্বলতার কারণে বিড়ালটি মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে প্রাণিটির মৃতুর সঠিক কারণ জানা যাবে।