ভ্যালেন্টাইন ডে উদযাপনের জন্য গোটা বিশ্বের প্রেমিক-প্রেমিকারা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।  এদিন আবার পহেলা ফাল্গুনও। সব মিলিয়ে দিনটি ঘিরে অনেকেরই নানা পরিকল্পনা রয়েছে। কেউ কেউ দিনটি উপলক্ষে এরই মধ্যে একে অন্যকে নানা উপহার দিয়েছেন। তবে উপহার দেওয়াই শেষ কথা নয়। দিনটি স্মরণীয় করে রাখতে চাইলে ব্যতিক্রমী কিছুও করতে পারেন । যেমন-

একসঙ্গে সূযোর্দয় দেখা : সকালে ঘুম থেকে ওঠা কষ্টকর হলেও ভালোবাসা দিবসে দুজনের একসঙ্গে সূর্যোদয দেখা নিঃসন্দেহে ব্যতিক্রম লাগবে। এদিন দুজন দুজনের পাশে সারাজীবন থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিনটি স্মরণীয় করে রাখতে পারেন।

বাগানের পরিচর্যা : প্রকৃতির সান্নিধ্যে সময় কাটালে মন উৎফুল্ল হয়ে ওঠে। ভলোবাসা দিবসে দুজনে কিছুটা সময় প্রকৃতির মাঝে কাটাতে পারেন। খুব দূরে যেতে না পারলে একসঙ্গে নিজেদের লাগানো গাছ বা বাগানের পরিচর্যা করুন। তা না হলে বারান্দার টবে নতুন কিছু গাছ লাগান। মন ভালো লাগবে।

ফটোশুট করুন : ভ্যালেন্টাইন ডে'তে ফটোশুটের জন্য একসঙ্গে কোথাও যেতে পারেন। এতে দুজনের কিছু সুন্দর মুহূর্ত ক্যামেরাবন্দী করে রাখতে পারবেন। মাঝে মধ্যে সেসব ছবি দেখলেও মন হযে যাবে।  

ক্যান্ডেলনাইট ডিনারের পরিকল্পনা
: ভালোবাসা দিবস উদযাপনের অন্যতম সেরা রোমান্টিক উপায় হচ্ছে ক্যান্ডেলনাইট ডিনারের পরিকল্পনা। এতে দুজন একান্তে কিছু সময় কাটাতে পারবেন।

সিনেমা দেখতে যাওয়া : যদি দুজনই সিনেমা দেখতে পছন্দ করেন তাহলে ভালোবাসা দিবসে হলে গিয়ে বা বাড়িতেই কোনো সিনেমা দেখতে পারেন। সঙ্গে রাখতে পারেন হালকা নাস্তাও। 

দূরে কোথাও : সঙ্গীর সঙ্গে দূরে কোথাও বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করতে পারেন ভ্যালেন্টাইন ডে উপলক্ষে। এর জন্য আগে যাননি এমন জায়গা অথবা আপনাদের প্রথম দেখা হয়েছে এমন স্থানে চলে যেতে পারেন।

খেলাধূলা করতে পারেন : ভালোবাসা দিবসটি ব্যতিক্রম করতে একসঙ্গে কিছু খেলাধূলাও করতে পারেন। এর মধ্যে ব্যাডমিন্টন, ফুটবল, টেনিস অন্যতম। দুজন এক টিম হয়েও অন্যদের সঙ্গে এসব খেলাধূলা করতে পারেন। এটাও ভিন্নরকম ব্যাপার হবে।

একসঙ্গে রান্না : মজার খাবার খেতে কে না পছন্দ করে। সঙ্গীর জন্য ভিন্ন কিছু রান্না করলে তা নিশ্চয়ই দিনটি অন্যরকম করে দেবে। চাইলে দুজন মিলে একসঙ্গে মজার কোনো খাবার বানাতে পারেন। এতেও মন ভালো লাগবে।

মন্তব্য করুন