ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলার চর জহিরউদ্দিনে স্ত্রী তার পরকীয়া প্রেমিককে নিয়ে স্বামীকে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। নিহত ব্যক্তির নাম হুমায়ুন কবির (৩২)। তিনি সোনাপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের চর শাওন এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে। এ ঘটনায় পুলিশ স্ত্রী ও তার প্রেমিককে আটক করেছে। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকালে তজুমদ্দিনের চর জহিরউদ্দিনে হুমায়ুনের নিজ ঘরে তার মৃতদেহ পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা দেখতে পান।  খবর পেয়ে চর জহিরউদ্দিনের পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যরা মরদেহ উদ্ধার করেন। এ সময় হুমায়ুনের স্ত্রী শারমিন বেগমের আচরণ সন্দেহজানক হলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে  তিনি স্বীকার করেন, গভীর রাতে তার পরকীয়া প্রেমিক  মো. লিটনসহ দুজন মিলে ঘুমন্ত হুমায়ুনের অণ্ডকোষ ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করা হয়। শারমিনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে  রোববার সকালে চর শাওন গ্রাম থেকে লিটনকেও আটক করা হয়। তিনি সোনাপুর ইউনিয়নের চরজহিরউদ্দিন ৩নং ওয়ার্ডের আবুল কাশেমের ছেলে। 

জানা যায়, প্রায় ৫ বছর আগে  হুময়ায়ুনের সঙ্গে শারমিনের বিয়ে হয়। তাদের দুটি সন্তান রয়েছে। কিন্তু বিয়ের আগে থেকেই লিটনের সঙ্গে শারমিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। 

তজুমদ্দিন থানা ওসি এসএম জিয়াউল হক রোববার বিকেলে জানান, লিটনকে সঙ্গে নিয়ে হুমায়ুনকে  অণ্ডকোষ ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার কথা শারমিন স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় তাদের দুই জনকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় আটক দুইজনকে আদালতে পাঠানো হবে।