কলকাতায় তৃতীয় বিশ্ব সিলেট উৎসব শুরু শুক্রবার

প্রকাশ: ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯   

কলকাতা প্রতিনিধি

আয়োজক সংগঠনের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার যোধপুর পার্ক বয়েজ স্কুল প্রাঙ্গণে সংবাদ সম্মেলন করে উৎসবের বিস্তারিত তুলে ধরা হয়- সমকাল

আয়োজক সংগঠনের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার যোধপুর পার্ক বয়েজ স্কুল প্রাঙ্গণে সংবাদ সম্মেলন করে উৎসবের বিস্তারিত তুলে ধরা হয়- সমকাল

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক ও কানাডার টরন্টোর পর এবার বিশ্ব সিলেট উৎসব হচ্ছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতায়। দক্ষিণ কলকাতা সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে যোধপুর পার্ক বয়েজ স্কুল প্রাঙ্গণে তিন দিনব্যাপী উৎসবের উদ্বোধন হবে শুক্রবার। তৃতীয়বারের মতো এ উৎসবে ভারত, বাংলাদেশ ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী সিলেটিরা অংশ নেবেন।

বৃহস্পতিবার যোধপুর পার্ক বয়েজ স্কুল প্রাঙ্গণে সংবাদ সম্মেলনে উৎসবের বিস্তারিত তুলে ধরেন আয়োজক সংগঠনের সভাপতি প্রদোশ রঞ্জন দে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক বাপ্পু এন্দো, সাংস্কৃতিক সম্পাদক দীপ্তা দে, মিডিয়া কনভেনর রক্তিম দাশ, অল ইন্ডিয়া শ্রীহট্ট সম্মিলনীর সভানেত্রী কৃষ্ণা দাস, সাকি চৌধুরী (জার্মানি), শেখর চৌধুরী (কানাডা), সাইফুল ইসলাম সুমন (বাংলাদেশ) প্রমুখ।

উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিশেষ অতিথি থাকবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ইমরান আহমদ, বন, পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়কমন্ত্রী মোহাম্মদ শাহাবউদ্দিন, ভারতের ছত্তিশগড় রাজ্যের প্রাক্তন রাজ্যপাল শেখর দত্ত, বাংলাদেশের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সি এম শফি সামি, ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, কথাসাহিত্যিক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রধান ড. ভীষ্মদেব চৌধুরী, আসামের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. অমলেন্দু চক্রবর্তী প্রমুখ।

আরও থাকবেন ভারতের সরকারি পর্যায়ে কর্মরত সিলেটি বংশোদ্ভূত উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, ভারত সরকারের বিভিন্ন স্তরের প্রতিনিধিসহ কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম, ভারতের শীর্ষ অর্থনীতিবিদ বিবেত দেবরায় এবং লোকসভার সদস্য মালা রায় ও রজদীপ রায়।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন শনিবার অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ সন্ধ্যা। এ পর্বে থাকছে সেমিনার, প্যানেল ডিসকাশন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সিলেট সফরের শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত বিশেষ এ সিরিজ সেমিনারে অংশ নেবেন অধ্যাপক ড. ভীষ্মদেব চৌধুরী (রবীন্দ্রনাথের সিলেট ভ্রমণ), অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম (শান্তিনিকেতনে সিলেট ভ্রমণের প্রভাব), অধ্যাপক জাফির সেতু (সিলেটে রবীন্দ্রচর্চা : শতবর্ষের নিরিখে ১৯১৩-২০১৩), অধ্যাপক অমলেন্দু চক্রবর্তী (রবীন্দ্রনাথ ও সিলেটি সংস্কৃতি), অধ্যাপক সুমহান বন্দ্যোপাধ্যায় (রবীন্দ্র লেখনিতে বিভিন্ন অঞ্চলের প্রভাব), সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও লেখক মুস্তাফিজ শফি (রবীন্দ্রনাথ : আজকের আলোকে)।

সেমিনার সমন্বয়ক হিসেবে থাকছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন আহমেদ। সঞ্চালনা করবেন সাংবাদিক রক্তিম দাশ (কলকাতা)। উৎসবে থাকছে 'কালচারাল হেরিটেজ অব সিলেট' বিষয়ক প্যানেল ডিসকাশন। এ পর্বে সিলেটি সাহিত্য এবং এর সূত্র নিয়ে কথা বলবেন ড. মোস্তাফা বাহার চৌধুরী, সিলেটি পঞ্চকবি ও অন্যান্য কৃতী সিলেটিদের নিয়ে কথা বলবেন রাশেদা কে চৌধুরী, সিলেটি নাগরী ও সিলেটি কৌতুক নিয়ে কথা বলবেন ড. অমলেন্দু চক্রবর্তী, সিলেট ও আসাম নিয়ে কথা বলবেন নাসির চৌধুরী এবং বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে সিলেটিদের ভূমিকা নিয়ে বলবেন কর্নেল (অব.) মোহাম্মদ আব্দুস সালাম বীরপ্রতীক।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছেন বাংলাদেশ ও ভারতের প্রখ্যাত শিল্পীরা। এ ছাড়া যুক্তরাজ্য থেকে হিমাংশু গোস্বামীসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত সিলেটি বংশোদ্ভূত প্রখ্যাত শিল্পীরা তো থাকছেনই। সিলেট থেকে আসছেন উৎপলা দাস, রুমা নাগ, রানা সিংহ, লাভলি দেব, প্রতীক এন্দো প্রমুখ। ভারত থেকে অংশ নেবেন জি সারেগামা বিজয়ী দেবজিৎ সাহা, অধ্যাপক মোহন সিং, নৃত্যশিল্পী সোনালী আচার্য, মিরাক্কেল বিজয়ী তপন দাস, মাদল, শ্রীভূমি প্রমুখ।

উৎসবে পাওয়া যাবে সিলেটি রান্নার বিভিন্ন পদ আস্বাদ করারও সুযোগ। এছাড়াও থাকবে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মণিপুরি তাঁতসহ নানা বস্ত্রসামগ্রী কেনাকাটার সুযোগ।