আজ মহান একুশে ফেব্রুয়ারি। আমাদের জাতীয় জীবনের স্মরণীয় দিন। মাতৃভাষা বাংলার জন্য প্রাণ উৎসর্গ করার দিন। ভাষা একটি জাতির আত্মবিকাশের অন্যতম প্রধান মাধ্যম। বাংলা ভাষা বাঙালি জাতির বিকাশের মাধ্যমের চেয়েও আরও বেশি কিছু- পরম গৌরবের, মমতার। মাতৃভাষায় নিজের অধিকার না থাকার চেয়ে দুঃসহ বাস্তবতা আর কিছু হতে পারে না। নিজ ভাষার অধিকার আদায়ে ১৯৫২ সালের রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতির ইতিহাসে তাই অভূতপূর্ব অধ্যায়। ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতি হিসেবে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় দুই দশকের কম সময়ের মধ্যে আমাদের যুগান্তকারী স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে উদ্বুদ্ধ করেছে। দ্বিজাতিতত্ত্বকে মিথ্যা প্রমাণ করে সেই প্রাণের ভাষা বাংলাই এ অঞ্চলের মানুষকে আবার একটি কেন্দ্রে মিলিত করেছে। বাঙালি নিজের স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র নিয়ে পৃথিবীর বুকে ঘোষণা করেছে তার বিজয়।

বাঙালির ভাষা ও জাতীয় চেতনার প্রতীক হয়ে আছে আজকের এই দিনটি। রক্তক্ষয়ী বায়ান্ন থেকে ৬৯ বছর পেরিয়ে এসে সেই বাংলা ভাষা আজ কেমন আছে? বাংলা ভাষা কি পেরেছে তার গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসকে সমুন্নত রাখতে, নাকি নানামুখী ভাষাশত্রুর ধারাবাহিক উল্লম্ম্ফনে আজও সে 'দুখিনী বর্ণমালা'?

সময় যত এগিয়ে যাচ্ছে সামনে- বৈশ্বিক বাস্তবতার কথা বলে আমরা অনেকেই বাংলা ভাষার গুরুত্বকে বুঝে উঠতে ব্যর্থ হচ্ছি। আপন মাতৃভাষার মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখা নিজের মর্যাদা সমুন্নত রাখার চেষ্টার সমান্তরাল। এবারের একুশে ফেব্রুয়ারি সামনে রেখে আমরা দেখতে চেয়েছি- এ সময়ে বাংলা ভাষা চর্চার পূর্বাপর। ইতিহাস ও বাস্তবতার নিরিখে শিক্ষা, অর্থনীতি, রাজনীতি, আইন-আদালত, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডল, সাহিত্যসহ তথ্যপ্রযুক্তির পরিবর্তিত বিশ্বব্যবস্থায় বাংলা ভাষার সাম্প্রতিক চর্চা ও প্রতিবন্ধকতা সম্পর্কে আলোকপাত করেছেন এই ভাষারই নবীন-প্রবীণ চিন্তাবিদ, গবেষকবৃন্দ। তাদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত নিয়ে প্রকাশিত হলো সমকালের এবারের অমর একুশে বিশেষ আয়োজন।

বাংলা ভাষার অসামান্য সৌন্দর্য বাঙালির প্রজন্ম-পরম্পরার উত্তরাধিকার। শুদ্ধ ভাষা চর্চা আমাদের পরিশুদ্ধ জীবনযাপনে আগ্রহী করে। বাংলা ভাষা ও একুশের অমর শহীদদের প্রতি সমকালের বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি।

– মুস্তাফিজ শফি

বিষয় : অমর একুশে

মন্তব্য করুন