মুদ্রিত বইয়ের আবেদন বাড়ছে: আনিসুজ্জামান

প্রকাশ: ০৪ অক্টোবর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেছেন, প্রযুক্তির অবিশ্বাস্য উন্নতিতে ছাপানো বইয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনেকে শঙ্কা প্রকাশ করেন। কিন্তু দিন দিন বইমেলা ও প্রকাশক বাড়ছেন। প্রযুক্তির বিকাশ হলেও ছাপানো বইয়ের আবেদন কমেনি, বরং বাড়ছে।

শুক্রবার রাজধানীর মহাখালীতে রাওয়া ক্লাবে দু'দিনের বইমেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। রিটায়ার্ড আর্মড ফোর্সেস অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন (রাওয়া) এ মেলার আয়োজন করেছে। শুক্রবার সকালে এর উদ্বোধন করেন আনিসুজ্জামান।

রাওয়া ক্লাবের চেয়ারম্যান মেজর (অব.) খন্দকার নূরুল আফসারের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী ও ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংকের চেয়ারম্যান গ্রুপ ক্যাপ্টেন (অব.) এম আবু জাফর চৌধুরী।

আনিসুজ্জামান আরও বলেন, মুদ্রিত বই বাজার থেকে উৎখাত করবে ই-বুক, এ রকম মনে করার কারণ নেই। বইয়ের সমাদর কিছুমাত্র কমেনি। অনেকে মনে করছেন, মুদ্রিত বইপত্রের ভবিষ্যৎ বোধহয় ভালো না। কিন্তু অভিজ্ঞতা বলছে, ই-বুক তথা যান্ত্রিক বইপত্র ছড়িয়ে পড়লেও মুদ্রিত বইয়ের প্রতি আকর্ষণ বেশি কমেনি। তিনি বলেন, বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় বইমেলার আয়োজন করে বাংলা একাডেমি। এ মেলার পরিসর প্রতিবছর বাড়ছে, বই বিক্রির সংখ্যা, প্রকাশকের সংখ্যা বাড়ছে। প্রকাশকরা পাবলিক লাইব্রেরিতে নানা সময়ে এককভাবে বইমেলা করছেন। ঢাকার বাইরে বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে নানা বইমেলা আয়োজিত হয়।

কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, অবসরে সামরিক কর্মকর্তারা যে সাহিত্য চর্চা করেন, সে গুণাবলি তারা জন্ম থেকেই বহন করছেন। তরুণদেরও শিল্প-সাহিত্যের প্রতি আকৃষ্ট করতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, বইমেলার অন্যতম দিক হওয়া উচিত পরবর্তী প্রজন্মের আগ্রহ সৃষ্টি করা। এখন ফোনের মধ্যে সবই আছে। বইও পড়া যায়। কিন্তু কালো হরফে সাদা কাগজে যে দেহটি ফুটে ওঠে, তার মায়া অন্যরকম। তা আরও মনোহারি।

উদ্যোক্তারা জানান, রাওয়া ২০১৪ সাল থেকে প্রতিবছরের মে মাসে বইমেলা করে থাকে। এ বছর ষষ্ঠ আয়োজনটি করা হয়েছে চলতি মাসে। গতকাল শুরু হওয়া এ মেলা চলবে আজ শনিবার পর্যন্ত। মেলায় ৫০টি স্টল রয়েছে। দেশের বড় ১০ প্রকাশনীর পাশাপাশি অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা লেখকদের বিভিন্ন ধরনের বই ৪০টি স্টলে বিক্রির জন্য প্রদর্শিত হচ্ছে। ভ্রমণকাহিনী, শিশুতোষ, গল্প, উপন্যাস, কবিতাসহ নানা বই রয়েছে।