বর্তমানে বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক উন্নয়নশীল দেশ বলে প্রশংসা করেছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান উপলক্ষে দেওয়া ভিডিও বার্তায় তিনি এ কথা বলেন।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণিত বাংলাদেশের বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্য অন্যতম। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সঙ্গেও যুক্ত রয়েছে যুক্তরাজ্যের আন্তরিক সহায়তা ও সমর্থন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের ‘মুজিব চিরন্তন’ অনুষ্ঠানের শেষ দিন শুক্রবার জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডের মঞ্চে এ ভিডিও বার্তা প্রচার করা হয়।

বরিস জনসন বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে ফেরার আগে ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু লন্ডনে যাত্রাবিরতি করেন এবং তখনকার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী স্যার অ্যাডওয়ার্ড হিথ এবং বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা স্যার হ্যারল্ড উইলসনের সঙ্গে ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে বৈঠকে অংশ নেন। যা আমাদের দু’দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের সূচনা ছিল। গত ৫০ বছরে এ বন্ধুত্ব আরও দৃঢ় হয়েছে।

তিনি মনে করেন, ২০১৮ সালে শেখ হাসিনার যুক্তরাজ্য সফর তারই প্রতিফলন। আগামী ৫০ বছর পর বাংলাদেশের শতবর্ষ উদযাপন করবে ব্রিটেন। এছাড়াও যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিতে অবদান রাখার জন্য যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটির অবদানের কথাও উল্লেখ করেন তিনি। বলেন, যুক্তরাজ্যে ছয় লাখেরও বেশি বাংলাদেশি রয়েছেন। তারা যুক্তরাজ্যের উন্নয়নে ভূমিকা রাখছেন। গত ৫ দশকে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির দিক থেকে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।