কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক বাঁশ দিয়ে ক্রিকেট ব্যাট বানিয়ে রীতিমতো হৈচৈ ফেলে দিয়েছেন ক্রিকেট দুনিয়ায়। তাদের এই যুগান্তকারী আবিষ্কার ক্রিকেটের গতিপথ বদলে দিতে পারে বলেও প্রত্যাশা অনেকের। তবে সব জল্পনা-কল্পনা থামিয়ে দিয়েছে 'দ্য মেরিলিবোর্ন ক্রিকেট ক্লাব' (এমসিসি)। 

ক্রিকেটের আইন প্রণয়নকারী এই সংস্থা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, বাঁশের ব্যাট দিয়ে খেলা হবে আইনের লঙ্ঘন, অবৈধ। ক্রিকেটের আইনে পরিস্কার লেখা আছে 'কাঠ দিয়েই ব্যাট বানাতে হবে'। তবে প্রত্যাখ্যান করলেও আইনবিষয়ক সাব-কমিটির সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনার আশ্বাস দিয়েছে এমসিসি।

ঐতিহ্যবাহী ইংলিশ উইলো কাঠ দিয়ে তৈরি হয় ক্রিকেট ব্যাট। কিন্তু কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দার্শিল শাহ, মাইকেল রামেজ ও বেন টিংলার-ডেভিস মিলে কাঠের বিকল্প হিসেবে বাঁশ দিয়ে ব্যাট বানিয়েছেন। তাদের বাঁশ দিয়ে তৈরি ব্যাট দামে সায়শ্রী এবং কাঠের তৈরি প্রচলিত ব্যাট থেকে ৪০ গুণ বেশি শক্তিশালী। 

কিন্তু সোমবার বাঁশের ব্যাটের সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিয়েছে এমসিসি। বর্তমানে ক্রিকেটের আইনের ৫.৩.২ ধারা অনুযায়ী ব্যাটের ব্লেডে অবশ্যই কেবলমাত্র কাঠ থাকতে হবে। কাজেই উইলো কাঠের পরিবর্তে বাঁশ (যা এক ধরণের ঘাস) ব্যবহার করতে হলে আইন পরিবর্তন করতে হবে। তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ হলো, শুধু বাঁশের জন্য বিশেষভাবে আইন বদলাতে হবে। কেননা এটাকে যদি কাঠ হিসেবে স্বীকৃতিও দেওয়া হয়, তার পরও বর্তমান আইনে সেটা অবৈধ হবে। কারণ জুনিয়র লেবেল ছাড়া ব্যাটের ব্লেডে কোনো প্রলেপ দেওয়া নিষেধ।'

বিষয় : ক্রিকেট ব্যাট বাঁশের ব্যাট ব্যাট উইলো কাঠ

মন্তব্য করুন