পড়াশোনা পঞ্চম শ্রেণি। করতেন মুদি দোকান। সেখানে ব্যর্থ হয়ে চাকরি নেন ঢাকার একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে। সেখানেই মানুষকে ঠকানোর হাতেখড়ি। এবার সেই চাকরি ছেড়ে দিয়ে খুলে বসেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান। চট্টগ্রাম নগরের বাণিজ্যিক এলাকা আগ্রাবাদে নেন অফিস। সেই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেজে বসেন তিনি। সহযোগী চার প্রতারককে বসান প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন পদে। নিয়োগ দেন এরিয়া ম্যানেজার। তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যক্তি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ঋণ দেওয়ার নামে হাতিয়ে নেন ২০ লাখ টাকা। দেড় মাস পর অফিস গুটিয়ে চম্পট দেন তারা। 

রোববার ভোরে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানা এলাকা থেকে সেই প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে নগরের ডবলমুরিং থানা পুলিশ। গ্রেপ্তার প্রতারক হলেন কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর থানার দক্ষিণ পুমদী গ্রামের আলী নেওয়াজের ছেলে মো. মনজিল।

ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, 'মনজিল এক মহা প্রতারক। তিনি মানুষকে কোটি টাকা ঋণ দেওয়ার লোভ দেখিয়ে জামানতের নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এ ছাড়া অনলাইনে চাকরি দেওয়ার বিজ্ঞাপন দিয়েও বেকার যুবকদের কাছ থেকে জামানতের নাম করে টাকা হাতিয়েছেন। তিনি বিভিন্ন জেলায় ঘুরে ঘুরে এ প্রতারণা করেন। চট্টগ্রামের পর সিলেটেও একই কায়দায় প্রতারণা করেছেন। তার চক্রের সবাই গ্রেপ্তার হলেও তিনি ছিলেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। অবশেষে তাকে গ্রেপ্তার করতে পেরেছি।'


বিষয় : মো. মনজিল প্রতারক গ্রেপ্তার চট্টগ্রাম

মন্তব্য করুন