বাংলাদেশে ফিকশনাল বইয়ের অন্যতম প্রকাশনী জ্ঞানকোষ এবারে নিয়ে আসছে শিশু-কিশোরদের জন্য নতুন গল্পের সিরিজ 'চমকিয়া'। বিভিন্ন দুঃসাহসিক অভিযানের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার প্রয়াসে এই উদ্যোগ নিয়েছেন লেখক শুভাশীষ রায়।

বিশ্ব শিশু দিবস উপলক্ষে রাজধানীর একটি রেস্টুরেন্টে সম্প্রতি জ্ঞানকোষ প্রকাশনীর মহাব্যবস্থাপক ও প্রকাশক ওয়াসি তরফদার এবং লেখক শুভাশীষ রায় 'চমকিয়া' সিরিজ নিয়ে বই প্রকাশের একটি চুক্তি সাক্ষর করেন।

১২-১৩ বছরের এক বিস্ময় বালিকা 'চমকিয়া' । সে  তার বিজ্ঞানের তথ্য আর প্রখর বুদ্ধিমত্তা দিয়ে সমাজের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করে একের পর এক এডভেঞ্চারের মধ্য দিয়ে। এই সিরিজের গল্পগুলো মূলত নতুন প্রজন্মকে 'টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা'র গুরুত্ব সম্পর্কে জানাতে সাহায্য করবে। এরই সাথে এই গল্প অনেকটা সাইন্স ফিকশনের আদলে লেখা, যাতে নতুন প্রজন্ম বিজ্ঞানের প্রতি আরও আকৃষ্ট হতে পারে।

'চমকিয়া' বইয়ের লেখক শুভাশীষ রায়, একাধারে একজন শেভেনীং স্কলার এবং মার্কেটিং প্রফেশনাল। তিনি মনে করেন, টেকসই এবং নির্ভরযোগ্য পৃথিবী গড়ে তুলতে প্রত্যেকের নিজ দায়িত্ব থেকে কাজ করা উচিত। তিনি জানান, এ চিন্তাধারা থেকেই এই বইটি লেখার শুরু করেন এবং নতুন চরিত্র, ‘চমকিয়া’ তৈরি করেন। এই চরিত্রটি শিশুদেরকে ছোট থেকেই আরো উন্নত এক পৃথিবী গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখাবে বলেও তিনি জানান।

এটি শুভাশীষের চতুর্থ বই। এর আগে  তার ম্যানেজমেন্ট নিয়ে রচিত বই  ‘থিংক লাইক সিইও’ যথেষ্ট সাড়া জাগিয়েছে। তিনি আরও একটি শিশুতোষ ফিকশনাল বই লিখেছেন ‘আধুনিক মজার মজার ভূত’ নামে। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশের প্রথম ক্রিয়েটিভ জার্নাল ‘যা ইচ্ছা তাই’ এর প্রবর্তক।
 
প্রকাশক ওয়াসী বলেন, জ্ঞানকোষ সবসময় সমাজের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এমন বই প্রকাশে উৎসাহ দেয়। তিনি আরও বলেন,আশা করি এই নতুন ধাঁচের বইয়ের সিরিজটি শিশুদের পছন্দ হবে।

‘চমকিয়া এবং বিজ্ঞানী ভজঘট’ এই সিরিজের প্রথম বই হবে।  ২০২২ সালের জানুয়ারী মাসে বইটি প্রকাশ হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। বইটি  ২০২২ সালের অমর একুশে গ্রন্থ মেলা এবং কলকাতা আন্তর্জাতিক বই মেলাতেও পাওয়া যাবে।  এই বইটিতে তিনটি গল্প থাকবে এসডিজি ৬, ১৫, এবং ১৬ এর উপর।  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি