দেশে উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্য বিভিন্ন দেশে রপ্তানিতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, ১৯৭৩-৭৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় ছিল মাত্র ২৯৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ৫০ বছর পেরিয়ে দেশের রপ্তানি আয় মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে এসেছে বিলিয়ন ডলারের ঘরে।
২০২০ সালের হিসাবে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় মোট ৩৯.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০৩৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হতে যাচ্ছে বিশ্বের ২৫তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। স্বল্পোন্নত থেকে বাংলাদেশ উঠে এসেছে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে।
রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য মতে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-নভেম্বর মাসে মোট ৮টি পণ্য খাত তথা- ওভেন পোশাক, নিটওয়্যার, হোম টেক্সটাইল, হিমায়িত খাদ্য, কৃষিজাত পণ্য, পাট ও পাটজাত দ্রব্য, চামড়া-চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা এবং প্রকৌশল দ্রব্যাদি থেকে আয় হয়েছে ১৫,০০৭.০১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা মোট রপ্তানি আয়ের ৯৫.১২%। দেশের অন্যান্য রপ্তানি পণ্যের মধ্যে রয়েছে- তামাক, জাহাজ, চা, কার্পেট, বাইসাইকেল, কেমিক্যাল প্রডাক্টস, ওষুধ, কাঁচা পাট, শাকসবজি, প্রকৌশলী যন্ত্রাংশ, কাগজ ও কাগজ পণ্য, প্লাস্টিক দ্রব্যাদি, ক্যাপ, হ্যান্ডিক্রাফটস, গলফ সাফট, জুতা [চামড়া ব্যতীত], রাবার, জুট ইয়ার্ন অ্যান্ড টোয়াইন, ইলেকট্রিক পণ্য, হিমায়িত ও জীবন্ত মাছ ইত্যাদি।

বিষয় : রপ্তানিতে অগ্রগতি

মন্তব্য করুন