সুনামগঞ্জে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অন্তত ৪০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ। সোমবার দিনভর সদর ও ধর্মপাশা উপজেলায় চাল, ডাল, লবণ, পেঁয়াজ, আলু, চিড়াসহ বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

সদর উপজেলার কুরবাননগর ইউনিয়নের হাছনবাহার ও পাঠানবাড়ি গ্রামের ৩০০ হতদরিদ্র পরিবারকে ত্রাণসামগ্রী দেওয়া হয়। ত্রাণ পেয়ে বানভাসিদের মুখে অমলিন হাসি ফুটে ওঠে।

হাছনবাহার গ্রামের কৃষক কামাল আহমদ বলেন, কয়েক দফা বন্যায় চরম দুর্ভোগে পড়েছি। ঘরবাড়ি, ফসল হারিয়েছি। পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে দিন পার করছি। এই ত্রাণ পেয়ে কিছুটা হলেও আমাদের কষ্ট দূর হবে। 

সুনামগঞ্জে সমকাল সুহৃদ সমাবেশের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ। ছবি: সমকাল

পাঠানবাড়ির পিয়ারা বেগম বলেন, ২২ বছর আগে স্বামী মারা গেছে। বড় দুই ছেলে অন্যত্র চলে গেছে। ছোট ছেলেকে নিয়ে অন্যের বাড়িতে কাজ করে কোনো রকমে দিন চলছিল। বন্যায় সব ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে। সকালে ত্রাণ দেওয়া হবে খবর পেয়ে অপেক্ষা করছিলাম। আমার মতো গরিবকে যারা সহায়তা করেছে, আল্লাহ তাদের সাহায্য করবে।

এ সময় সমকাল সুহৃদ সমাবেশের বিভাগীয় সম্পাদক আসাদুজ্জামান, সমকালের জেলা প্রতিনিধি পঙ্কজ দে, সুহৃদ সমাবেশের ঢাকা কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য তাইম শেখ, শাহিন, আলম, শাওন, ফাহাদ, আনোয়ার, সুনামগঞ্জ সমকাল সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি মাহবুবুল হাছান শাহীন, সুনামগঞ্জ বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল আবুল হাসান, সুনামগঞ্জ সমকাল সুহৃদ সমাবেশের সাধারণ সম্পাদক সাদিকুর রহমান সনি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অভিজিৎ রায়, নাট্যকর্মী সামির পল্লব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সুনামগঞ্জে সমকাল সুহৃদ সমাবেশের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ। ছবি: সমকাল

এদিকে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলায় সমকাল সুহৃদ সমাবেশের পক্ষ থেকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১০০ পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে সমকাল সুহৃদ সমাবেশের ধর্মপাশা শাখার উদ্যোগে সদর ইউনিয়নের দেওলা, মধুপুর, জানিয়ারচর, কুড়েরপাড় ও জয়শ্রী ইউনিয়নের মলয়শ্রী গ্রামে এসব খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এ সময় সংগঠনের উপজেলা শাখার সভাপতি সুভাষ চন্দ্র সরকার, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক গোলাম জিলানী, সমকাল প্রতিনিধি এনামুল হক, ধর্মপাশা প্রেস ক্লাবের সভাপতি তরিকুল ইসলাম পলাশ, সাংবাদিক সাজিদুল হক, সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।