দুটি কিডনি নয়; মাত্র একটি কিডনি দিয়েই ২০০৩ সালে প্যারিসে আয়োজিত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জিতে ভারতীয় অ্যাথলেটিক্সকে এক অন্যমাত্রায় পৌঁছে দিয়েছিলেন অঞ্জু ববি জর্জ নামের এক নারী।  

সেই পদক জয়ের ১৭ বছর পর তার সেই কষ্টের কথা এক টুইট বার্তায় জানিয়ে দিলেন ভারতের সাবেক এই লংজাম্পার। 

জিনিউজ জানায়, বিশ্ব মিটে ব্রোঞ্জ পদকজয়ের পর কেরালার  এই অ্যাথলেটের ঝুলিতে এসেছে বহু আন্তর্জাতিক পদক। কমনওয়েলথ গেমসে ব্রোঞ্জ পদক ছাড়াও দুটি এশিয়ান গেমসে সোনা জিতেছেন অঞ্জু ববি জর্জ। 

এক টুইট বার্তায় এক কিডনি দিয়ে কিভাবে তিনি বিশ্বমঞ্চে নিজেকে তুলে ধরেছেন সে কথাই জানিয়েছেন তিনি।

অঞ্জু  লেখেন, 'বিশ্বাস করুন কি নাই করুন। আমি হচ্ছি সেই ভাগ্যবতীদের একজন। যে একটা কিডনি নিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাফল্য পেয়েছি। শুধু একটা কিডনি নয়, প্রবল অ্যালার্জি,পায়ের চোট নিয়ে প্রতিদিনই পেইন কিলার খেয়ে ট্র্যাকে নামতাম।' এক  সাক্ষাৎকারে প্যারিসের টুর্নামেন্টে নামার আগে অসুস্থ হয়ে পড়ার কথাও জানিয়েছিলেন তিনি।

এছাড়া কিডনি এবং অন্যান্য অসুখের প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌২০০১ সালে আমি জানতে পারি, আমার শরীরে জন্ম থেকেই একটি কিডনি। কিন্তু চিকিৎসকরা জানান, এর জন্য খেলা চালিয়ে যেতে আমার কোনও সমস্যা হয়নি। তবে এজন্য যখনই চোট পেতাম, তা সারাতে আমার একটু বেশি সময় লাগত। আমার শরীরে ইউরিয়ার পরিমাণও অনেক বেশি ছিল। এজন্য শরীরের বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যথাও হত। তা কমাতে পেনকিলার খেতাম। কিন্তু পেনকিলার জাতীয় কোনও প্রকার ওষুধ খেলেই আবার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হত। অজ্ঞান হয়ে যেতাম। কখনও হাসপাতালেও ভরতি হতে হত। ওষুধের এই বিষয়টি আমার পরিবারের অনেকেরই আছে।’‌

কিন্তু কেনো এতদিন এ বিষয়ে নিরব ছিলেন এই প্রশ্নের জবাবে অঞ্জুর ভাষ্য,  ‘‌আমি সবসময় ভয় পেতাম। তবে এখন আর সেই ভয়টা নেই। এখন অনেক বেশি অভিজ্ঞ‌ হয়েছি। আমার মনে হয়, আমার এই লড়াইটা জানতে পারলে অনেকেই কিন্তু অনুপ্রাণিত হবেন।’‌


মন্তব্য করুন