রাজনৈতিক এবং খেলার মাঠে ভারত আর পাকিস্তান চিরশত্রু। দুই দেশের মাঝে যুদ্ধাবস্থার কারণে প্রায় এক দশক ধরে দ্বিপাক্ষিক ক্রিকেট সিরিজ হয় না। অন্যান্য খেলাতেও দ্বিপাক্ষিক প্রতিযোগিতা বন্ধ। এবারের বিশ্বকাপে প্রথমবার ভারতকে হারিয়েছে পাকিস্তান। তাও আবার ১০ উইকেটে। শেষ পর্যন্ত দুই দলই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে। কিন্তু ভারত-পাকিস্তান লড়াই এখানেই শেষ নয়।

তবে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশ ঢাকায় মুখোমুখি হচ্ছে হকি মাঠে। সেটাও বাংলাদেশের ঐতিহাসিক এক দিনে।  আগামী ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার মাওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে দেখা যাবে ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথ। চ্যাম্পিয়নস ট্রফি হকি সুযোগ করে দিচ্ছে দুই পরাশক্তির লড়াই উপভোগের।

সাধারণত এশিয়ার শীর্ষ ছয় দল খেলে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে। তবে বাংলাদেশ স্বাগতিক হিসেবে প্রথমবারের মতো এই টুর্নামেন্টে সুযোগ পেয়েছে স্বাগতিক হিসেবে।

এশিয়ান হকি ফেডারেশনের প্রকাশিত সূচি অনুযায়ী, ১৪ ডিসেম্বর থেকে ঢাকায় শুরু হবে টুর্নামেন্ট। উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে মালয়েশিয়ার সঙ্গে। ১৫ নভেম্বর বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ প্রতিবেশী ভারত। ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে দেখা যাবে বাংলাদেশ-দক্ষিণ কোরিয়া ম্যাচ। একই দিনে অনুষ্ঠিত হবে ভারত-পাকিস্তান মহারণ। বাংলাদেশের পরবর্তী দুই ম্যাচ ১৮ ও ১৯ ডিসেম্বর যথাক্রমে জাপান আর পাকিস্তানের বিপক্ষে।