সাম্প্রতিক সময় বাংলাদেশের কোনো টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের খেলা নিয়ে ফিসফাস হয়। চট্টগ্রাম টেস্টের আগেও গুঞ্জন ছিল ইনজুরি দেখিয়ে শেষ পর্যন্ত তামিম হয়তো খেলবেন না। জল্পনা-কল্পনা উড়িয়ে দিয়ে বাঁহাতি এ ওপেনার তো খেলছেনই, রানও করছেন দুই হাতে। সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা ব্যাট করে ১৩৩ রান নিয়ে অপরাজিত তিনি। হাতের মাসলে ক্র্যাম্প হওয়ায় ব্যাটিংয়ে সাময়িক বিরতি নেন। গতকাল ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স জানান, তামিম আজ ব্যাটিং করবেন।' জাতীয় দলের এ সিনিয়র ব্যাটার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেঞ্চুরি করে টেস্টে পাঁচ হাজারি রানের ক্লাব থেকে ১৯ রান দূরে। এই মাইলফলকে যেতে মিডল অর্ডার ব্যাটার মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে লড়াই হচ্ছে তার। আজ আর ১৫ রান করলেই দেশের প্রথম ব্যাটার হিসেবে মুশফিকের পাঁচ হাজার রান হবে।
একটা লম্বা সময় টেস্ট খেলেননি তামিম। যে কারণে নবম থেকে দশম সেঞ্চুরিতে যেতে ৩৯ মাস লাগে। হাঁটুর লিগামেন্টে সমস্যা ধরা পড়ায় গত বছর জিম্বাবুয়েতে টেস্ট না খেলেই দেশে ফেরেন বাঁহাতি এ ওপেনার। পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা হয়নি তার। এ বছর দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে দুই টেস্টের একটিতে খেলেন তিনি। সে ম্যাচে রান না পেলেও ঘরের মাঠে ঠিকই জ্বলে ওঠেন ৩৪ বছর বয়সী এ ব্যাটার। নিজের মাঠে দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি তুলে নেন বেসিক ক্রিকেট খেলে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ২০১৪ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম সেঞ্চুরি ছিল তার। শুধু শতকই না, মাহমুদুল হাসান জয়কে নিয়ে ১৬২ রানের জুটি গড়ে করে দলের শক্ত ভিত গড়েন। তাই গতকাল দিনের খেলা শেষে বাঁহাতি এ ওপেনারের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স, 'আমার মতে তামিম ও জয় দারুণ খেলেছে। জয় সুন্দর ব্যাটিং করেছে। ব্যাটিং ওপেন করা সহজ কাজ না। তারা গতকাল (সোমবার) যেটা করেছে, সেটাকে আজ এগিয়ে নিয়ে গেছে। প্রায় দুই দিন ফিল্ডিং করার পর ব্যাটিং করা কঠিন ছিল গরমের ভেতরে। ১৯ ওভারে ৭৬ রানে অপরাজিত ছিল। আজ সেটাকে টেনে নিয়ে গেছে। তামিমের পারফরম্যান্স তো অসাধারণ। ২০ রান (পাঁচ হাজার রান থেকে ১৯ রান দূরে) থেকে দূরে আছে। ফিট হলেই সে ফিরবে।'
তামিমের দিনে ছন্দ দেখান আরও দুই ব্যাটার মুশফিকুর রহিম ও লিটন কুমার দাস। হাফ সেঞ্চুরি হয়ে গেছে দু'জনেরই। ৯৮ রানে অপরাজিত জুটি আর এক সেশন টিকে গেলে সেঞ্চুরিও পেয়ে যেতে পারেন দু'জন। বাংলাদেশকে প্রথম ইনিংসে পাঁচশ রানে নিয়ে যেতে হলে এই দু'জনের কাছ থেকে বড় ইনিংস লাগবে। জেমি সিডন্সের প্রত্যাশা বড় লিড নিয়ে শ্রীলঙ্কাকে চাপে ফেলতে পারবেন তাঁরা। কারণ চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করা কঠিন হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।