প্রতিভাবান হয়েও একটা সময় দল থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন। সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারছিলেন না। জীবন বদলে গেল বোনের মৃত্যুই।  নতুন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে আবার বাইশ গজে নিজেকে ফিরে পেতে মরিয়া পাকিস্তানের শান মাসুদ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দলে তো বটেই, বিশ্বকাপেও সুযোগ পেয়েছেন তিনি।

যদিও দেশের প্রতিনিধিত্ব করা নিয়ে গর্ববোধ করলেও কোনো চাপ নিচ্ছেন না তিনি। এই বাঁহাতি ব্যাটারের মতে, ক্রিকেটের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছু রয়েছে মানুষের জীবনে।

নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করে শান জানান, 'আমি সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেক কিছু শিখেছি এবং একজন ব্যক্তি ও খেলোয়াড় হিসেবে অভিজ্ঞ হয়ে উঠেছি। জীবনে ক্রিকেটের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছু রয়েছে। তাই আমি যা যা করি, সেসব নিয়ে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি।'

৩২ বছর বয়সী শান এর আগে টেস্ট ও ওয়ানডে খেলেছেন পাকিস্তানের হয়ে। যদিও ২০২১ সালের জানুয়ারির পর আন্তর্জাতিক মঞ্চে খেলতে দেখা যায়নি তাকে। এবার তিনি ফিরেছেন টি-টোয়েন্টি দলে প্রথমবারের মতো ডাক পাওয়ার মধ্য দিয়ে। আগামী অক্টোবর-নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্কোয়াডেও রাখা হয়েছে তাকে। পিএসএল, ভাইটালিটি ব্লাস্ট ও জাতীয় টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে ব্যাট হাতে আলো ছড়ানোয়।

নতুন সংস্করণে নিজেকে প্রমাণ করার কোনো চাপ বোধ করছেন কি না, জানতে চাইলে শান বলেছেন, 'আমার বোনের মৃত্যুর পর সবকিছু ভিন্নভাবে দেখতে শুরু করেছি। নিজের দেশের হয়ে খেলার সুযোগ পাওয়াটাকে কিংবা নিজের পছন্দের খেলাটা খেলতে পারা এবং এর থেকে আয় করতে পারাটা দারুণ অনুভূতির ব্যাপার। তবে ক্রিকেটে সফলতা বা ব্যর্থতার চেয়ে জীবন আরও বড় কিছু।'

আগামী মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে পাকিস্তান ও ইংল্যান্ডের সাত ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। প্রথম চারটির ভেন্যু করাচি, শেষ তিনটির লাহোর। দুই পরাশক্তির লড়াই শেষ হবে আগামী ২ অক্টোবর।