ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০২৪

বিরাট কোহলির ফেক ফিল্ডিং; খালি হাতে বল ছোড়ার ভঙ্গি

প্রশ্নবিদ্ধ আইসিসির ফেয়ার প্লে নীতি

প্রশ্নবিদ্ধ আইসিসির ফেয়ার প্লে নীতি

অ্যাডিলেডের টিম হোটেলে এক ফ্রেমে সাকিব-সৌম্য বিসিবি

অ্যাডিলেড থেকে সেকান্দার আলী

প্রকাশ: ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ১২:০০ | আপডেট: ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ২২:১০

ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচ নিয়ে দুই দেশের সমর্থকদের মধ্যে যে উত্তেজনা থাকে, বাংলাদেশ-ভারতের ম্যাচে তা থাকে না। যেটুকু থাকে, সেটাও কম নয়। বুধবার যেমন অ্যাডিলেড ওভালে ম্যাচের উত্তাপ লেগেছিল সমর্থকদের মধ্যেও। এই উত্তাপ মাঠের প্রতিদ্বন্দ্বিতার চেয়েও বিতর্কিত সিদ্ধান্তের কারণেই ছড়িয়েছে বেশি। ভেজা মাঠে তড়িঘড়ি করে খেলা শুরু করা এবং ভারতকে ফেক ফিল্ডিংয়ের শাস্তি না দেওয়ায় বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেটা ভাইরাল হতে দেরি হয়নি। অভিযোগ উঠেছে, ভারতকে বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখতেই কৌশলগত কিছু সুবিধা দেওয়া হয়। ম্যাচ অফিসিয়ালদের মাধ্যমে সুবিধাগুলো পাওয়ায় প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) 'ফেয়ার প্লে' নীতি।
বুধবার অ্যাডিলেড ওভালে ছিল বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ। লোকেশ রাহুল, সূর্যকুমার যাদব ও বিরাট কোহলির ইমপ্যাক্ট ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ওভারে ১৮৪ রান করে ভারত। ১৮৫ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা বাংলাদেশ ভালো শুরু পায়। লিটন কুমার দাসের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে পাওয়ার প্লে থেকে ৬০ রান তুলে ফেলে বিনা উইকেটে। সপ্তম ওভারে গিয়ে একটি বিতর্কিত ঘটনা ঘটে। লিটন কুমার দাস ও নাজমুল হোসেন শান্তকে ধোকায় ফেলতে নিয়ম ভেঙে ফেক ফিল্ডিং করেন বিরাট কোহলি। আইসিসির প্লেইং কন্ডিশনে যেটাকে অবৈধ করা হয়েছে বেশ আগে। কোহলি জেনেশুনে এমন কাণ্ড করার পরও শাস্তি হিসেবে বাংলাদেশকে পাঁচ রান দেননি দুই ফিল্ড আম্পায়ার নিউজিল্যান্ডের ক্রিস বুন আর দক্ষিণ আফ্রিকার মারাইস এরাসমাস। রান নেওয়া শেষ করেই বিষয়টি আম্পায়ারদের দৃষ্টিতে এনেছিলেন শান্ত। কিন্তু আম্পায়ার জানান, বিরাটের ফেক ফিল্ডিং দেখতে পাননি তাঁরা। বিতর্কের সূত্রপাত ওখান থেকেই। এই ঘটনাকে পক্ষপাতিত্ব হিসেবে দেখেন সমর্থকরা। বিতর্কিত সিদ্ধান্তটি মেনে নিতে পারছিলেন না বিসিবি কর্মকর্তারাও। এ নিয়ে পরে ম্যাচ অফিসিয়ালদের সঙ্গে কথা বলেছেন কোচ শ্রীধরন শ্রীরাম। যদিও তাতে কোনো লাভ হয়নি। পেনাল্টির পাঁচ রান দেওয়া হয়নি বাংলাদেশকে। এ ব্যাপারে আইসিসির কাছেও নালিশ করার সুযোগ রাখা হয়নি বলে জানান একজন আন্তর্জাতিক আম্পায়ার। নাম গোপন রাখার শর্তে পক্ষপাতিত্বমূলত এই সিদ্ধান্ত সম্পর্কে গতকাল ফোনে তিনি বলেন, 'বিরাট কোহলি যেটা করেছেন, সেটা সম্পূর্ণ অবৈধ। পেনাল্টি হিসেবে বাংলাদেশ পাঁচ রান পায়। তবে আম্পায়ার না দেখে থাকলে কিছু করার নেই। টিভি আম্পায়ার সিগন্যাল দিতে পারতেন। একটা ঘটনা সবার চোখ এড়িয়ে যাওয়ার কথা না। বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে ম্যাচের শেষ বলটি রিপ্লে দেখে যদি নো ডাকতে পারে, তাহলে এটাও করা যেত। কিন্তু ম্যাচ শেষ হয়ে যাওয়ার পর কিছু করার নেই।'
বাংলাদেশ দলের দিক থেকে অভিযোগ উঠেছে, বিরাট কোহলি ফিল্ডিংয়ের পুরো সময় খুবই বিরক্তিকর আচরণ করেছেন, যেটা মেনে নেওয়া কঠিন। একজন কর্মকর্তা নাম গোপন রাখার শর্তে বলেন, 'তার মতো একজন আইকনিক ক্রিকেটারের কাছ থেকে এ রকম কিছু আশা করা যায় না।' যদিও ভারতকে বিতর্কিত সুবিধা দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে কাদা ছোড়াছুড়ি করতে চায় না বিসিবি। এ ব্যাপারে বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস জানান, এ ধরনের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। বিষয়টি নিয়ে সঠিক ফোরামে আলোচনা করার কথা ভাবছেন তারা।

আরও পড়ুন

×