ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

কোরিয়াকে খাদের কিনারা থেকে বাঁচান হিচান

কোরিয়াকে খাদের কিনারা থেকে বাঁচান হিচান

খেলা শেষে কোরিয়ার উল্লাস

ওয়াফিফ রহমান, এডুকেশন সিটি স্টেডিয়াম থেকে

প্রকাশ: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ | ১৩:৫২ | আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ | ১৩:৫২

ম্যাচ শুরু ৬টায় হলেও ৪টায় মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ। গতকাল ৪ বারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানির বিদায়ে দোহার মন একটু হলেও খারাপ, তবে আজ শহরজুড়ে ভাস্কোদাগামাদেশিদের দেখে বোঝা গেল বিশ্বকাপের সৌন্দর্য যেন একটুও ম্লান হয়নি। পর্তুগালের ম্যাচ মানেই খেলায় অনেক বাড়তি আকর্ষণ, মাঠের ভেতরে বাইরে সব জায়গায় শুধু রোনালদো রোনালদো রব। 

যদিও জল্পনা কল্পনা ছিল রোনালদোর খেলা নিয়ে। প্রথম হাফ তাকে ছাড়াই মাঠে বল গড়াবে এমনটাই ধারণা ছিল সবার। ৪৪ হাজার ৬৬৭ সিট ধারণক্ষমতার এডুকেশন সিটি স্টেডিয়াম কানায় কানায় পূর্ণ। ম্যাচ শুরুর আগেই অনেকটা নির্ভার লাল-সবুজ ইউরোপিয়ানরা ইতিমধ্যেই নকআউট নিশ্চিত করেছে, যাদের আজকের কাজটা নিজেদের পরবর্তী রাউন্ডের জন্য ঝালিয়ে নেওয়া। এতক্ষণে আমরা সবাই জেনে গেছি পরের রাউন্ডে কার সঙ্গে নামছে পর্তুগাল। ম্যাচ শুরুর আগের সমীকরণ ছিল নকআউটে ব্রাজিলের মুখোমুখি হতে না চাইলে এই ম্যাচে পয়েন্ট তথা মিনিমাম ড্র লাগছে। যদিও শেষ পর্যন্ত হার দিয়ে মাঠ ছাড়ে ২০১৬-এর ইউরো জয়ী দলটি। সেই শঙ্কা উড়ে যায় উরুগুয়ে-ঘানার ফলাফলের জন্য।

বিগত ম্যাচে স্রোতের বিপরীতে খেলা কোরিয়ার সনকে আজ দেখা গেল কয়েকবার আক্রমণে যেতে। প্রথমার্ধের শুরুতেই হর্তার গোলে যখন এগিয়ে গেল পর্তুগাল, তখনও বোঝা যায়নি কোরিয়া প্রথমার্ধেই পর্তুগালকে পেয়ে বসতে পারে। সন অনেকবার বা পাশ দিয়ে এগিয়ে গেলেও অনেকটাই নিষ্প্রভ ছিল। প্রথমে একটু দিশেহারা লাগলেও কোরিয়াকে ঘুরে দাঁড়াতে দেখা গেল তাদের অফসাইডে গোল বাতিল হওয়ার পর। তারপর মাঝমাঠে তাদের বেশ দাপটের সঙ্গেই দেখা যায় এবং সন- চো হয়ে ইয়ংগন এর দুর্দান্ত ফিনিশে ১-১ সমতা।

দিতীয়ার্ধের ৬৫ মিনিটের মাথায় যখন রোনালদোকে সাব করা হয় ততক্ষণে তার মিসের সংখ্যা একাধিক। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই একটা সুযোগ ছিল তার সামনে দলকে এগিয়ে দেওয়ার। কিন্তু সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি। বাম পাশ দিয়ে জুয়াওকানসেলোকে কয়েকবার আক্রমণে দেখা যায়। কিন্তু ক্ষুরধার কোনো এটাক দেখায়নি, বল পজিশনে এগিয়ে থাকলেও ক্যামন যেন একটা ছন্নছাড়া পর্তুগাল। রোনালদো যখন বেন্চ্ড, কোরিয়াকে তখন থেকেই পাওয়া গেল নতুন এক রূপে, সন কে দেখা গেল মাস্ক খুলে খেলতে, মুহুর্মুহু আক্রমণে দিশেহারা পেপে কস্তারা। কেউ ভাবেনি শেষ মুহূর্তে কোরিয়ার ত্রাণকর্তা হিসেবে হিচান ইনজুরিটাইমে আবির্ভূত হবেন।

বুল নামে খ্যাত উলভারহ্যাম্পটনের এই দাপুটে ফরোয়ার্ড কোরিয়াকে শুধু খাদের কিনারা থেকেই বাঁচাননি, দলকে নিয়ে গেলেন শেষ ষোলতে যেখানে প্রতিপক্ষ ব্রাজিল। আগেই নক আউট নিশ্চিত করা পর্তুগালকে ম্যাচ শেষে দেখা গেল পর্তুগিজ জোনের দিকে এগিয়ে সাপোর্টারদের ধন্যবাদ জ্ঞাপনে।

তবে গ্যালারির পারফরমেন্সে কোরিয়া ছিল যেজন যোজন এগিয়ে। পর্তুগালে বাংলাদেশি অভিবাসীদের সংখ্যা অগনিত হওয়াতে মাঠে বাংলাদেশিও ছিল প্রচুর। আর রোনালদোকে একনজর দেখতে পৃথিবীর কোন দেশ থেকে ফ্যান আসেনি তা বলা কঠিন, পর্তুগাল তো বটেই, ফিজি থেকে নিকারাগুয়া, এমনকি কোরিয়ান দর্শকরাও রোনালদোর শেষ বিশ্বকাপ দেখতে হাজির হয়েছেন দোহার এডুকেশন সিটি স্টেডিয়ামে।

আরও পড়ুন

×