ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

ইউরোপে বাড়ছে এশিয়ান ফুটবলারদের কদর

ইউরোপে বাড়ছে এশিয়ান ফুটবলারদের কদর

জহির উদ্দিন মিশু

প্রকাশ: ০৪ আগস্ট ২০২৩ | ১৮:০০

একটা সময় ছিল, যখন তুর্কি খেলোয়াড় ছাড়া খুব একটা এশিয়ানদের ইউরোপের ক্লাবগুলোতে দেখা যেত না। লম্বা সময় ধরে তাদের ফুটবলারদের দিয়েই ঠেকা কাজ চালিয়েছে প্রিমিয়ার লিগ, লা লিগা থেকে শুরু করে বাকিরা। গত এক যুগে এ চিত্র বদলেছে অনেকখানি। দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান এবং ইসরায়েল এখন একের পর এক খেলোয়াড় দিচ্ছে শীর্ষ পাঁচ লিগে। যার মধ্যে কোরিয়া ও জাপানই আছে দাপুটে অবস্থানে। গত তিন মৌসুমের পরিসংখ্যানও তেমন কথা বলবে। মূল পাঁচ লিগে এ দুই দেশ থেকে বর্তমানে খেলছেন ২১ জন, যেখানে এক বুন্দেসলিগায় আছেন জাপানের আট খেলোয়াড়। ২০২৩-২৪ মৌসুমে অবশ্য দক্ষিণ কোরিয়ানদের জয়জয়কার। এরই মধ্যে গ্রীষ্মের দলবদলে তিন কোরিয়ানকে দলভুক্ত করেছে ইউরোপের লিগগুলো, যার মধ্যে পিএসজি দলে ভেড়ায় ক্যাং লি, বায়ার্ন মিউনিখের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন মিন কিম আর জার্মান ক্লাব স্টুর্টগার্ডে উ ইয়ং।

২০২৩-২৪ মৌসুমে মোট ৩৯ জন এশিয়ান খেলোয়াড় ইউরোপের বিভিন্ন ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত হন। তার আগের দুই মৌসুম মিলিয়ে একশর বেশি সংখ্যাক খেলোয়াড় খেলেছেন। যদিও এর মধ্যে সবাই আবার একাদশে নিয়মিত নন। কেউ বদলি হয়ে নামেন, কেউ আবার শুরুর একাদশে থাকলেও পুরো ৯০ মিনিট খেলার সুযোগ পান না। তবু মৌসুমজুড়ে আলোচনায় থাকেন তারা।

এবার যে ক’জন নতুন করে রিক্রুট হয়েছেন, তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয় রিয়াল মাদ্রিদে আসা তুর্কি তরুণ আর্দা গুলারকে নিয়ে। স্বদেশি ফেনারবাখে দ্যুতি ছড়িয়ে রিয়াল প্রেসিডেন্ট পেরেজের নজরে আসেন তিনি। এর পর তাঁকে ২০ মিলিয়ন ইউরোতে দলে ভেড়ায় লস ব্লাঙ্কোসরা। ২০২৯ সাল অবধি তাঁর সঙ্গে চুক্তি করেছে মাদ্রিদের ক্লাবটি। গুলার ছাড়াও তিন দক্ষিণ কোরিয়ানকে রিক্রুট করেছে তিন ক্লাব। যার মধ্যে পিএসজি নেয় ক্যাং লিকে। বায়ার্ন মিউনিখে নাম লেখান আরেক দক্ষিণ কোরিয়ান মিন কিম। তারা নতুন মৌসুমে কেমন করে সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা।

এখন পর্যন্ত ইউরোপের সেরা পাঁচ লিগে যতজন এশিয়ান ফুটবলার নাম লিখিয়েছেন তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি তুরস্কের তাদের মোট খেলোয়াড় ১৯২ জন। তার পরই আছে জাপানের নাম। সব মিলিয়ে ৯২ জন খেলোয়াড় এরই মধ্যে ইউরোপের বিভিন্ন লিগে খেলেছেন। ফুটবলে এশিয়ার আরেক পরাশক্তি দক্ষিণ কোরিয়া থেকে এখন পর্যন্ত ৫৮ খেলোয়াড় ইউরোপের বিভিন্ন লিগে অংশ নিয়েছেন। যার মধ্যে গত দুই দশকে যারা এলেন-গেলেন, তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলো কাড়েন সন হিউং মিন। টটেনহামে খেলা এই তারকার বাজারমূল্য ৫০ মিলিয়ন ইউরো। তাঁকে নিয়ে এরই মধ্যে অনেক ক্লাব আগ্রহ দেখাচ্ছে। বার্সাও সনকে দলে নিতে চায়। যদিও সন স্পার্সদের সঙ্গে আরও কয়েক মৌসুম কাটাতে চাচ্ছেন। সন ছাড়াও বুন্দেসলিগায় খেলা আট জাপানিও মাঝেমধ্যে আলোচনার জন্ম দেন। তাদের কেউ কেউ আবার লম্বা সময় আছেন জার্মানির ফুটবলের সঙ্গে। সামনে হয়তো এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন

×