এল ক্লাসিকো ম্যাচের হাতাহাতি

প্রকাশ: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯     আপডেট: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: ফাইল

এল ক্লাসিকো মানেই নতুনত্ব। মাঠে কিংবা মাঠের বাইরে। ফুটবল কিংবা অফুটবলীয় সব ঘটনা বিবেচনায় রোমাঞ্চকর এক লড়াই। সেই লড়াইয়ে চলতি বছর আরেক নতুনত্ব যোগ হচ্ছে। ২৫ দিনের ব্যবধানে দেখা যাবে তিনটি এল ক্লাসিকো ম্যাচ। তার মধ্যে আবার চারদিনের ব্যবধানে রিয়ালের মাঠে গড়াবে দুটি এল ক্লাসিকো। ফল, ঘটন-অঘটন কি হবে তা এখনই বলার জো নেই। বরং পূর্বের এল ক্লাসিকোর কিছু হাতাহাতি দেখে আসা যায়। 

পুয়েলের মুখে রামোসের খামছি: ছবিটা ২০১০ সালের এল ক্লাসিকোর। রিয়াল মাদ্রিদ ৫-০ গোলে হারতে বসেছে। এমন সময় ম্যাচের ৯০ মিনিটে মেসিকে ফাউল করলেন রামোস। সিধা লাল কার্ড দেখলেন রিয়াল তারকা। সঙ্গে সঙ্গে পুয়লের সঙ্গে বেধে গেল রামোসের। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যে সতীর্থের সঙ্গে স্পেনের হয়ে বিশ্বকাপ জিতলেন তার মুখে খামছি দিয়ে দিলেন রামোস। 

পুয়ের-রামোস হাতাহাতি। ছবি: ফাইল

ফ্যাব্রিগাসকে ফাউল মার্সেলোর: ২০১১ সালের স্প্যানিশ সুপার কাপের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটি জয়-পরাজয় ছাড়িয়ে লাল কার্ডের জন্য খ্যাত। তিনটি লাল কার্ড দেখান রেফারি। ম্যাচে ৩-২ ব্যবধানে জেতে বার্সা। দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৪ ব্যবধানে। ওই ম্যাচে চেলসি থেকে বার্সায় আসা ফ্যাব্রিগাসের এল ক্লাসিকো অভিষেক হয়। প্রথম ম্যাচেই মার্সেলো তাকে ফাউল করাই বেধে হেল হট্টগোল।

ফ্যাব্রিগাসকে ফাউর করেন মার্সেলো। বেধে যায় দু'দলের মধ্যে লড়াই। ছবি: ফাইল

গার্দিওয়ালাকে রোনালদোর ধাক্কা: ২০১০ সালের নভেম্বরের এল ক্লাসিকো ম্যাচে বার্সেলোনা কোচ পেপ গার্দিওয়ালাকে ধাক্কা দিয়ে বসেন রোনালদো। 

বল নিতে যান রোনালদো। পেপ তা একটু দুরে চেলে দেন। ধাক্কা দিয়ে বসেন রোনালদো। ছবি: ফাইল

সুয়ারেজকে ফাউল রামোসের: ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের এল ক্লাসিকো ম্যাচে বার্সেলোনা স্ট্রাইকার সুয়ারেজক পেনাল্টি বক্সে ফাউল করেন রামোস। দুই দলের ব্যাড বয়ের মধ্যে ঠোকাঠুকি লেগে যায়। পরে রামোস অবশ্য হলুদ কার্ড দেখেন। রামোস এবং সুয়ারেজের মধ্যে লেগে যাওয়ার ঘটনা অবশ্য এল ক্লাসিকোয় কম না।   

সুয়ারেজ-রামোসের লড়াই এল ক্লাসিকো মানেই দেখা সুযোগ। ছবি: ফাইল

মেসির হাতে পেপের পা: ২০১২ সালের এল ক্লাসিকো ম্যাচে মেসির হাতে পা চাপিয়ে দেন রিয়াল ডিফেন্ডার পেপে। এ নিয়ে পেপ গার্দিওয়া এবং রিয়াল কোচ মরিনহো সমালোচনা করেন পেপের। পর্তুগিজ ডিফেন্ডার নিষেধাজ্ঞাও পেতে পারেন বলে কথা ওঠে সে সময়। 

মেসির হাতে পা চাপিয়ে দেন  পেপে। ছবি: ফাইল

রোনালদো-আলভেস দৈরত্ব: দানি আলভেস বার্সেলোনা ছেড়েছেন। রোনালদোও ছেড়েছেন রিয়াল মাদ্রিদ। তবে এল ক্লাসিকো ম্যাচ সম্ভবত এই দুই তারকাকে ভুলবেনা। তাদের মধ্যে এল ক্লাসিকো ম্যাচে লেগেই থাকতো। ঠুকঠাক বেধেই যেত তাদের। কেউ ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নন। ফাউল-পাল্টা ফাউল। ডাইভের লড়াইও চলতো তাদের। 

এখন তাদের দুটি পথ দুটি দিকে গেছে চলে। তবে এল ক্লাসিকো মানেই তাদের ঠুকাঠুকি ছিল অবধারিত। ছবি: ফাইল 

মাশ্চেরানো-রোনালদো: এল ক্লাসিকো ম্যাচে আর্জেন্টিনার বার্সা মিডফিল্ডার মাশ্চেরানো এবং রিয়াল তারকা রোনালদোর মধ্যে হুটহাট বেধে যাওয়ার ঘটনাও কম নয়। এছাড়া কাসেমিরো-বুসকেটস, পিকে-রামোসদের মধ্যেও দেখা যায় ঝামেলা। ক্ষেপে যান মডরিচ, মেসি পর্যন্ত।

মাশ্চেরানো-রোনালদোও এল ক্লাসিকোর রং চড়িয়েছেন অতীতে। ছবি: ফাইল