এক উইকেট পেতে চেয়েছিলেন জায়েদ

প্রকাশ: ১৬ মে ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: ফাইল

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের দলে বাংলাদেশের চমক ছিলেন আবু জায়েদ। কিন্তু তাসকিনের দলে না থাকা নিয়েই বেশি আলাপ হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় উঠেছে। হতে পারে দল ঘোষণার দিন তাসকিনের চোখের পানি বড় ভূমিকা রেখেছে। তবে অভিজ্ঞতাও একটা কারণ ছিল। বিশ্বকাপ দলে জায়েদের বদলে তাসকিনকে নেওয়ার কথাও তাই উঠেছে। তবে তাসকিনকে পেছনে ফেলে আবু জায়েদ সামনে ছুটে চলেছেন।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজের শেষ ম্যাচে তিনি নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। বিশ্বকাপে দলে জায়গার দাবি জোরালো করেছেন। তাকে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচেই দুর্দান্ত পারফর্ম করতে বড় অবদান রেখেছেন অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা। তার দেওয়া আত্মবিশ্বাস, পরামর্শের ভূমিকা অনেক বলে জানান জায়েদ।

গতির চেয়ে সুইংয়ে বেশি নজর দেওয়া এই পেসার বলেন, 'সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমাকে নিয়ে অনেক কথা হয়েছে। মাশরাফি ভাই তাই আমাকে বলেন, সামাজিক মাধ্যমের চাপ নিতে পারলে ঠিক আছে, না পারলে ওদিকে মন না দিতে। প্রথম ম্যাচে আমি কিছুটা চাপে ছিলাম। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে আমি চাপহীনভাবে খেলতে পেরেছি।'

তার চাপ কমাতে দলীয় অধিনায়ক মাশরাফির ভূমিকা নিয়ে জায়েদ বলেন, 'আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে মাশরাফি ভাই আমাকে উজাড় করে বোলিং করতে বলেছিলেন। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে কিংবা বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে যেমনটা করি। কোন ভয় কিংবা দ্বিধা ছাড়া বল করার পরামর্শ দেন। আমি কেবল তার পরামর্শ অনুসরণ করেছি।'

জায়েদ জানেন বাংলাদেশ দলে এখন কত প্রতিযোগিতা। দলে নাম ঘোষিত হওয়ার পরই জায়গা নিয়ে টানাটানি পড়ে যায়। তিনি এখন টেস্টের মতো ওয়ানডে দলেও ভালো করতে চান, 'পাঁচ উইকেট নিয়ে ভালো লাগছে। দ্বিতীয় ম্যাচেই এমন ভালো করা অপ্রত্যাশিত। আমি তো অন্তত একটা উইকেট পাওয়ার চিন্তায় মাঠে নেমেছিলাম। দুটো হলে ভালো হয় এই ছিল ভাবনা।'

তবে দ্বিতীয় ম্যাচে ভালো করাই দলে কিংবা একাদশে জায়গা পাকা নয় তার। জায়েদ বলেন, 'আমি জানি, এখনও অনেক পথ যাওয়ার বাকি আমার। আমি বাড়ির ছোট ছেলে। মা আমাকে নিয়ে তাই খুব চিন্তা করেন। আমার এই প্রথম পাঁচ উইকেট তাই মাকে উৎসর্গ করেছি।' 

বিষয় : খেলা ক্রিকেট বাংলাদেশ ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ-২০১৯