বিশেষজ্ঞ কলাম

বাংলাদেশ ভারতের বিপক্ষে ভালো খেলে

প্রকাশ: ২৭ জুন ২০১৯     আপডেট: ২৭ জুন ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

শরফৌদ্দলা ইবনে শহীদ সৈকত

বাংলাদেশ এ পর্যন্ত যা খেলেছে, তা প্রত্যাশিতই ছিল। খেলোয়াড়দের যে ইচ্ছে, যে স্বপ্ন এবং পরিকল্পনা- সে গন্তব্যে পৌঁছাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে তারা। নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ম্যাচটা জিততে পারলে লক্ষ্যের দিকে আরও খানিকটা এগিয়ে থাকা যেত। এ ছাড়া শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটা তো হলোই না। ওই ম্যাচটা

আমাদের জেতার সম্ভাবনা ছিল বেশি। যা হয়নি তা নিয়ে ভাবলে শুধু আফসোস বাড়বে। এখন যে জায়গায় আছি, সেখান থেকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। যদিও ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দুটি সহজ হবে না। তবে অলআউট খেলতে পারলে ফল বাংলাদেশের পক্ষে আসার সম্ভাবনা থাকবে। বাংলাদেশ দল সেটা পারবে বলেই আমার বিশ্বাস। বিশেষ করে আফগানিস্তানের বিপক্ষে যেভাবে ব্যাট করতে দেখেছি, এককথায় অসাধারণ। ওই ধারাটা রাখতে পারলে ভারতের বিপক্ষেও লড়াই হবে।

এ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দু'জন ক্রিকেটারের কাছ থেকে খুবই ভালো সার্ভিস পাচ্ছে- একজন সাকিব, অন্যজন মুশফিকুর রহিম। টানা ছয়টি ম্যাচে সাকিব যেভাবে খেলেছে, সে স্যালুট পাওয়ার যোগ্য। তবে একটা বিষয় দলের সবাইকে মাথায় রাখতে হবে, বাকি দুটি ম্যাচও যে সাকিবই জেতাবে, তেমন নাও হতে পারে। কারণ, সব দিন সবার সমান যায় না। সেদিক থেকে অন্যদেরও এগিয়ে আসতে হবে। ভালো করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। সেমিফাইনাল খেলতে হলে পরের দুটি ম্যাচই জিততে হবে। ভালো দিক হলো, ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে সাত দিনের একটা বিরতি পাওয়া গেছে। টিম ম্যানেজমেন্ট খেলোয়াড়দের ছুটি দিয়েছে। এ রকম একটা বিরতি দরকারও ছিল। তারা অনেক দিন সফরে আছে, টানা খেলছে, এই ছুটি ক্রিকেটারদের সতেজ করে তুলবে। সবাই সতেজ হয়ে ফিরতে পারলে আর দল হিসেবে খেলতে পারলে ভারতকে ধরেও ফেলতে পারে বাংলাদেশ। আমি অন্তত আশাবাদী।

ভারতকে হারানোর একটা আগ্রহ আমাদের খেলোয়াড়দের মধ্যে আছে। ভারতের সঙ্গে আমরা সব সময় ভালো খেলিও। বিশেষ করে বড় মঞ্চে ভারতকে কোনো সময়ই কিন্তু বাংলাদেশ দল সহজে জিততে দেয়নি। ২০০৭ বিশ্বকাপে আমাদের কাছে হেরে ভারত তো টুর্নামেন্ট থেকেই ছিটকে গেছে প্রথম রাউন্ডে। এ ছাড়া ২০১২-এর এশিয়া কাপে ঢাকায় তারা আমাদের কাছে হেরেছে। গত এশিয়া কাপের ফাইনালে হারতে হারতে জিতে গেছে। ভারতের বিপক্ষে এমন আরও কিছু ম্যাচ রয়েছে, যেগুলোতে আমরাও জয়ের কাছাকাছি চলে গিয়েছিলাম, কিন্তু জিততে পারিনি। এবারও যে পারব না, তা তো নয়। হ্যাঁ, এই বিশ্বকাপে ভারতকে হারাতে হলে দল হিসেবে ভালো খেলতে হবে। বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের সে সামর্থ্য আছে। শুধু বিশ্বাসটা রাখতে হবে, ভারতকে হারাতে পারবে তারা। তাহলেই দেখবেন একটা কিছু হয়ে যেতে পারে।

নিঃসন্দেহে ভারত এই টুর্নামেন্টের ফেভারিট। তাই বলে তারা সব ম্যাচ জিতবে, তেমন নাও হতে পারে। তাদের খেলোয়াড়রাও মানুষ, ভুল করতেই পারে। তারা যাতে ভুল করে, সেই চেষ্টা দিয়ে ওদেরকে ভুল করতে বাধ্য করতে হবে। সেটা করার জন্য মানসিক দিক থেকে ক্রিকেটারদের খুবই শক্ত থাকতে হবে। কারণ, এই ম্যাচটা জিততে পারলেই সেমিতে খেলার সম্ভাবনা জোরালো হবে। আর হেরে গেলে হিসাব-নিকাশ বদলে যাবে। তাই ভারতের বিপক্ষে ম্যাচটাকে সেমিফাইনাল ধরে নিয়ে খেলতে হবে বাংলাদেশকে।

লেখক : জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার ও আন্তর্জাতিক আম্পায়ার।