ফোকাসটা থাকুক উইন্ডিজের দিকে

বিশেষজ্ঞ কলাম

প্রকাশ: ১৩ জুন ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

শরফোদ্দৌলা ইবনে শহীদ সৈকত

এ মুহূর্তে কোনো বিশ্নেষণই পরিপূর্ণ হবে না। কেননা, কেউই জানে না পরের ম্যাচে কী হবে। টনটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচটা হবে কি-না, তাও জানি না। কারণ, ইংল্যান্ডের গ্রীষ্ফ্মকালে দেশটির আবহাওয়া বিভাগও বৃষ্টি নিয়ে সঠিক পূর্বাভাস সব সময় দিতে পারে না। তাই এসব নিয়ে না ভেবে ১৭ জুন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যে ম্যাচ আছে, তাতে ফোকাস থাকা ভালো।

ভারত, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানের সঙ্গে আমাদের খেলা বাকি আছে। ধরে নিই এই দলগুলোর মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তান আর আফগানিস্তান আয়ত্তের মধ্যে। নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে জিততে পারবে। সেমিফাইনাল খেলতে চাইলে এই তিনটা ম্যাচ অবশ্যই জিততে হবে। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাড়ে চারটা জয় বা ৯ পয়েন্ট হবে। একটা জিতে আছে, পরিত্যক্ত ম্যাচ থেকে এক পয়েন্ট পেয়েছে আর তিনটা জিততে হবে। ভাগ্য ভালো থাকলে এই সমীকরণ মিলে যাবে। আর ভাগ্য খারাপ থাকলে আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচটাও বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়ে যেতে পারে। কেউ বলতে পারছি না, কী হবে। আবার এমনও হতে পারে, ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচ থেকে একটি করে পয়েন্ট পেয়ে গেছে বাংলাদেশ। এত কিছু আসলে ভাবতে হতো না যদি নিউজিল্যান্ডকে হারাতে পারত আর শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটা খেলে জেতা যেত।

আসলে আরও একটি-দুটি ম্যাচ না যাওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের সম্ভাব্য সেমিফাইনাল নিয়ে সঠিক ধারণা দেওয়া সম্ভব হবে না। কারণ, আরও ২০-২২ দিন লিগের খেলা চলবে। এর মধ্যে অনেক কিছু ঘটে যেতে পারে। বড় দলের খেলাও বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হতে পারে। পাকিস্তান-শ্রীলংকা, দক্ষিণ আফ্রিকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচ পরিত্যক্ত হতে দেখেছি আমরা। আমি নিশ্চিত, আরও এক-দুটি ম্যাচ মাঠে গড়াবে না। এসব না ভেবে বাংলাদেশ দল জয়ের কথা চিন্তা করে খেললে ভালো করবে। মনোযোগটা খেলার মাঠে থাকলেই মঙ্গল। বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত যথেষ্ট ভালো পারফরম্যান্স করেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচটাই জিতেছে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভালো খেলেছে। শুধু ইংল্যান্ডের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা জমেনি। ভারতও তো অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সাড়ে তিনশ' রান করেছে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে না হয় একটু বেশিই করেছে ইংল্যান্ড। এ মুহূর্তে সবচেয়ে ফর্মে থাকা ব্যাটসম্যান হলো ইংল্যান্ডের। ওদের চেনা কন্ডিশনে, ছোট মাঠে টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ের সুবিধাটা তারা পেয়েছে এবং ভালো কাজে লাগিয়েছে। একটা ম্যাচ মাত্র বাংলাদেশ খারাপ খেলেছে। এটা নিয়ে বিদ্রুপ করার কিছু নেই। বাস্তবে সেমিফাইনাল খেলা বাংলাদেশের জন্য কঠিন। তবে প্রতিপক্ষ ভুল করলে আর আমরা ভালো করলে সামনের পাঁচটা ম্যাচের চারটাতেও জিততে পারে। কমপক্ষে তিনটা ম্যাচ জিততেই হবে।

অনেক সমীকরণ বাকি। আমার দৃষ্টিতে বাংলাদেশের জন্য ভারত প্রতিপক্ষ হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে কঠিন। তাই আবারও বলছি, টার্গেট করতে হবে পাকিস্তান, আফগানিস্তান আর ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। এই তিনটা দলের সঙ্গে জেতা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। ৯ পয়েন্ট হলেও যে সেমিফাইনালে যাওয়া যাবে, সে নিশ্চয়তা কেউ দিতে পারবে না। কারণ ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে নিউজিল্যান্ডকেও সেমিফাইনাল রেসে রাখতে হচ্ছে। নিউজিল্যান্ড তিনটা জিতে আছে, আর দুটিতে জিতলেই হবে। সুতরাং সেমিফাইনালের চিন্তা একপাশে রেখে বাংলাদেশ ভালো খেলার চিন্তা করলে লাভবান হবে।

লেখক :জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার ও আন্তর্জাতিক আম্পায়ার।

বিষয় : ফোকাসটা থাকুক উইন্ডিজের দিকে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ-২০১৯