মাথায় আঘাত পেলে খেলোয়াড় বদল

প্রকাশ: ২০ জুলাই ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: ফাইল

২০১৪ সালে বলের আঘাতে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ফিল হিউজের মৃত্যুর ঘটনা গোটা ক্রীড়া বিশ্বকে নাড়িয়ে দিয়েছিল। এরপর ক্রিকেট মাঠে খেলোয়াড়দের চিকিৎসা-নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। তবে মাথায় আঘাত লাগার ক্ষেত্রে একটি সীমাবদ্ধতা থেকেই যাচ্ছিল; দেখা গেছে, অনেক ক্ষেত্রেই তাৎক্ষণিকভবে আঘাতের তীব্রতা বোঝা যায় না। আবার খেলোয়াড়টি যদি মাঠ ছেড়ে যান, তাহলে দল বিপদে পড়ে যেতে পারে- এমন ভাবনায় ঝুঁকি নিয়ে তারা মাঠে থেকে যান। এ ধরনের পরিস্থিতির সমাধান হিসেবে এখন থেকে মাথায় আঘাতে খেলোয়াড় বদলি সুযোগ দিয়েছে আইসিসি। লন্ডনে ক্রিকেটের বৈশ্বিক কর্তৃপক্ষের বার্ষিক কনফারেন্সে এ নিয়মটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়, যা ১ আগস্ট থেকে কার্যকর হবে।

আগামী মাসের শুরু থেকে কার্যকর হওয়ার সিদ্ধান্ত অবশ্য আরও একটি হয়েছে। এখন থেকে স্লো ওভার রেটের কারণে অধিনায়ককে ম্যাচ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে না। এ ছাড়া জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডের সদস্য পদ স্থগিত এবং আগামী বছরের একাধিক ইভেন্টের ভেন্যু চূড়ান্তকরণ এবং 'নো' বল সিদ্ধান্তের রিপ্লে ব্যবস্থা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার মতো সিদ্ধান্তও হয়েছে।

কনকাসন বিধি: মাথায় আঘাত লাগলে যেন খেলোয়াড় বদল করা যায়, এমন প্রস্তাব আইসিসিকে চার বছর আগেই দিয়ে রেখেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। দেশটির ঘরোয়া ক্রিকেটে তিন বছর ধরে এ নিয়ম চালুও আছে। আইসিসির অনুমোদনের মাধ্যমে এখন থেকে ক্রিকেটের সব ফরম্যাট (টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি) এবং প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে এ নিয়মটি কার্যকর হবে। এক্ষেত্রে কোনো খেলোয়াড় আঘাত পেলে তাকে বদল করা দরকার কি-না, এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবেন তার দলের চিকিৎসক। এরপর ম্যাচ রেফারির অনুমোদন সাপেক্ষে তাৎক্ষণিকভাবে খেলোয়াড় বদল করা যাবে। সেক্ষেত্রে একই ধরনের ক্রিকেটার হতে হবে, অর্থাৎ, ব্যাটসম্যানের বদলে ব্যাটসম্যান, বোলারের বদলে বোলার।

তিন দেশের সদস্য পদ স্থগিত, এক দেশ বহিস্কার :আইসিসির আইন লঙ্ঘনের দায়ে সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে জিম্বাবুয়ে, ক্রোয়েশিয়া ও জাম্বিয়ার। শেষ দুটি দেশ আইসিসির সহযোগী সদস্য, কিন্তু জিম্বাবুয়ে পূর্ণ সদস্য। দেশটির ক্রিকেট বোর্ডে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ থাকায় আইসিসি বোর্ড সর্বসম্মতিক্রমে সদস্য পদ স্থগিতে মত দেয়। সদস্য পদ স্থগিত হওয়ায় জিম্বাবুয়ে জাতীয় দল এখন থেকে কোনো আইসিসির টুর্নামেন্টে খেলতে পারবে না।

বাৎসরিকভাবে আইসিসি থেকে প্রাপ্ত অর্থও তারা পাবে না। তবে আগামী তিন মাসের মধ্যে নিয়মানুযায়ী বোর্ড পুনর্গঠন করলে আগামী অক্টোবরে আইসিসির পরবর্তী মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা হবে বলে জানানো হয়েছে। জিম্বাবুয়ের পাশাপাশি ক্রোয়েশিয়া ও জাম্বিয়ার সদস্য পদ স্থগিত করা হয়েছে আইসিসির মানদণ্ড পূরণ করতে না পারায়। আর একাধিকবার নোটিশের পরও যথাযথ উদ্যোগ না নেওয়ায় বহিস্কার করা হয়েছে দ্য মরক্কান রয়্যাল ক্রিকেট ফেডারেশনকে।

স্লো ওভার রেটে অধিনায়ক নিষিদ্ধ হবেন না : বর্তমান বিধি অনুসারে কোনো অধিনায়ক এক বছরে দু'বার স্লো ওভার রেটে দোষী হলে তাকে এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। এ ছাড়া ধীর গতির দায়ে দলের বাকি দশজনের চেয়ে বেশি জরিমানা করা হয় অধিনায়কের। তবে ক্রিকেট কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে আইসিসি বোর্ড নিয়মটি সংশোধন করেছে।

এখন থেকে কোনো অধিনায়ককে স্লো ওভার রেটের কারণে ম্যাচ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে না। আর আর্থিক জরিমানা যেটি করা হবে, সেটির দায় দলের সব খেলোয়াড়েরই, কেউ কম-বেশি নয়। এ ছাড়া আসন্ন টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের খেলায় ম্যাচশেষে যে দল স্লো ওভার রেটে পিছিয়ে থাকবে, তাদের প্রতি ওভারের জন্য দুটি কম্পিটিশন পয়েন্ট কাটা যাবে।

বিষয় : খেলা ক্রিকেট