বিজয়কে ভুলে গেলেন নান্নু

প্রকাশ: ১৯ আগস্ট ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ছবি: ফাইল

এনামুল হক বিজয় আঠারো দিন আগেই জাতীয় দলের ম্যাচ খেলেছেন শ্রীলংকায়। তারও আগে 'এ' দলের ম্যাচ খেলেছেন দেশে আফগানিস্তান 'এ' দলের বিপক্ষে। 'এ' দলের হয়ে চার দিনের ম্যাচে সেঞ্চুরিও আছে তার। অথচ কন্ডিশনিং ক্যাম্পের জন্য ৩৫ জনের দলে জায়গা হলো না বিজয়ের। এর কারণ হতে পারে বাংলাদেশের পাইপলাইন এতই শক্তিশালী যে, সর্বশেষ জাতীয় দলে খেলা একজন ক্রিকেটারের র‌্যাংকিং ৩৫ বা তারও পরে। অথচ জাতীয় দলের স্কোয়াড করা হয় ১৪ বা ১৫ জন ক্রিকেটারকে নিয়ে।

কন্ডিশনিং ক্যাম্পের দলে বিজয়ের এই না থাকা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির প্রধান আকরাম খান একটু বিব্রতই হলেন। পরে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর কাছ থেকে কারণ জেনে একটা ব্যাখ্যাও দিলেন, 'নির্বাচকরা বলেছেন, বিজয়ের ব্যাপারটা পরে দেখবেন। অন্য কোনো ক্ষেত্রে হয়তো বিজয়কে নেওয়া হবে। আর সাইফউদ্দিন ইনজুরিতে। তার ইংল্যান্ডে যাওয়ার কথা। তবে কাল থেকে সে ফিটনেস ক্যাম্পে যোগ দেবে।'

জাতীয় দলে নির্বাচনে স্বচ্ছতা রাখতে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন দুই স্তরের নির্বাচন ব্যবস্থা রেখেছেন। জাতীয় দলে নির্বাচক প্যানেলের কাজ হলো প্রাথমিক স্কোয়াড ঠিক করে দেওয়া। এরপর নির্বাচক কমিটি ওই তালিকা যাচাই-বাছাই করে সংযোজন বা বিয়োজন করার পরামর্শ দেবে প্যানেলকে। পদাধিকার বলে যে কমিটির প্রধান আবার আকরাম খান। অথচ গতকাল দুপুর পর্যন্ত প্রাথমিক স্কোয়াডের খেলোয়াড়দের সম্পর্কে জানতে না তিনি।

প্রশ্ন হলো, প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু কি বিজয়ের নামটা ভুলে গিয়েছিলেন? এমন কিছু হলে বিস্ময় হওয়ার মতো কিছু নেই। কন্ডিশনিং ক্যাম্পের স্কোয়াডে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকেও প্রথমে রাখেননি তিনি। পরে দলের ৩৬তম সদস্য হিসেবে যুক্ত করা হয় তাকে। মাশরাফি বিন মুর্তজাকেও শনিবার শেষ মুহূর্তে নেওয়া হয় ৩৫ জনের দলে। বিজয়কে না রাখার বিষয়ে নান্নু বলেন, 'ওকে তো রাখব। বিজয়কে নিয়ে অন্য পরিকল্পনা আছে।' পরিকল্পনা যেটাই থাক, ফিটনেস তো বিজয়েরও প্রয়োজন।