আন্ডারডগের মতো হারল বাংলাদেশ

প্রকাশ: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: এএফপি

চট্টগ্রাম টেস্টে জয়টাই আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে আফগানদের। ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে সহজেই হারায় তারা। বাংলাদেশের বিপক্ষে ফেবারিট হয়েই মাঠে নামে। শুরুতে দারুণ বোলিং করে ভালোর আভাস দেয় বাংলাদেশ। কিন্তু শেষে বোলারদের ব্যর্থতা ব্যাটসম্যানদের কাজটা কঠিন করে তোলে। বড় রান তাড়া করতে নামা বাংলাদেশ ব্যাট হাতে লড়াই করতেই পারেনি। হেরে গেছে ২৫ রানের ব্যবধানে। 

রোববার শেরেবাংলা মিরপুর স্টেডিয়ামে টস জিতে আফগানিস্তান ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। শুরুর তিন ওভারের মধ্যে ১৯ রানে ৩ উইকেট হারায় তারা। সেখান থেকে মোহাম্মদ নবীর সাত ছক্কা ও তিন চারে ৮৪ রানে ভর করে ১৬৪ রান তোলে আফগানিস্তান। জবাব দিতে নামা বাংলাদেশ ইনিংসের প্রথম ও দ্বিতীয় ওভারে দুই ওপেনার লিটন দাস ও মুশফিকুর রহিমকে হারায়। এরপর মুজিবের এক ওভারে ফিরে যান সাকিব আল হাসান ও সৌম্য সরকার। মাহমুদুল্লাহ-সাব্বির ক্রিজে দাঁড়ালেও দলকে জেতানোর মতো কিছু করতে পারেননি। বাংলাদেশ এক বল থাকতে ১৩৯ রানে অলআউট হয়।

দলের হয়ে মাহমুদুল্লাহ সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন। এছাড়া সাব্বির রহমান খেলেন ২৪ রানের ইনিংস। তাদের জুটি থেকে ৫৮ রান পায় বাংলাদেশ। জয়ের আশাও করে। কিন্তু তাদের পর আফিফ-মোসাদ্দেক ফিরতেই আশা নিভে যায় বাংলাদেশের। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ফিফটি করে ম্যাচ জেতানো আফিফ হোসেন ১৬ রান করে ফেরেন। মোসাদ্দেক আউট হন ১২ রান করে। শেষে মুস্তাফিজ ৭ বলে এক ছয় ও দুই চারে ১৫ রান করলে হারের ব্যবধান কিছুটা কমে বাংলাদেশের।

হুট করে বাংলাদেশ এ ম্যাচে মুশফিককে ওপেন করায়। কিন্তু তিনি নতুন বলে খেলতে পারেননি তিনি। ফরিদ মালিকের বলে ফিরে যান ৫ রান করে। শুরুতেই মোমেন্টাম হারায় বাংলাদেশ। মুজিব উরের স্পিন সামলাতে সৌম্যর বদলে মুশফিককে ওপেনে নামায় বাংলাদেশ। কিন্তু সাকিবদের সে বুদ্ধি কাজে দেয়নি। বরং মুশফিক ফিরে যেতে মিডল অর্ডারে রশিদ খানকে খেলার মতো আত্মবিশ্বাসী কেউ না থাকায় হিতে বিপরীত হয়েছে।

আফগানদের হয়ে মোহাম্মদ নবীর সঙ্গে ৭৯ রানের জুটি গড়েন আসগর আফগান। তিনি ৪০ রান করেন। বাংলাদেশ এ ম্যাচে চার নিয়মিত বোলার নিয়ে মাঠে নামে। সৌম্য-মোসাদ্দেকদের তাই চার ওভার বল করতে হয়। রক্ষণাত্মক মানসিকতার ওই বোলিং আক্রমণ পিছিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। ম্যাচের ১৮তম ওভারে বল করতে এসে সৌম্য সরকার দেন ২২ রান। দুই ওভারে ৩২ রান খান তিনি। অন্যদিকে মোসাদ্দেক ১ ওভারে ১২ রান দেন।

পারটাইম বোলারদের চার ওভারে ৪৭ রান তুলে নেয় আফগানিস্তান। এছাড়া ১৮ ও ১৯তম ওভার মিলিয়ে বাংলাদেশ দেয় ৪০ রান। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে নেন চার উইকেট। সাকিব আল হাসান ৪ ওভারে ১৮ রানে দুই উইকেট নেন। মুস্তাফিজ ৪ ওভারে ২৫ রান খরচায় উইকেট শূন্য থাকেন। আফগান অফ স্পিনার মুজিব উর রহমান ৪ ওভারে ১৫ রানে খরচায় ক্যারিয়ারে সেরা ৪ উইকেট নেন। রশিদ খান, গুলবাদিন নাঈব এবং ফরিদ মালিক নেন দুটি করে উইকেট।