টাইগারদের সামনে এখন টেস্ট পরীক্ষা

প্রকাশ: ১২ নভেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১২ নভেম্বর ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

আলী সেকান্দার, ইন্দোর থেকে

টি২০ থেকে টেস্ট ম্যাচে প্রবেশ করা স্টেশন বদলানোর মতো মনে হলেও ক্রিকেটে ব্যাপারটা সহজ নয়। এক ফরমেশন থেকে অন্য ফরম্যাটে যেতে ত্বরিত গতিতে নিজেকে ভেঙে গড়তে হয় ক্রিকেটারদের। সেখানে ইন্দোর টেস্টের আগে টাইগারদের মানিয়ে নিতে হচ্ছে আলোর গতিতে। টি২০র সিরিজ শেষ করার তিন দিনের মাথায় হলকার স্টেডিয়ামে টেস্ট ম্যাচ খেলতে নামবেন তারা। এর জন্য কোনো ম্যাচ প্র্যাকটিস নেই। এখানেই শেষ নয়, ১৪ থেকে ১৮ নভেম্বর ইন্দোরের ম্যাচ দিয়ে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপও শুরু করছে বাংলাদেশ। একই সঙ্গে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটি আবার গোলাপি বলে দিবারাত্রির খেলা। তার জন্যও নেই কোনো প্রস্তুতি। এই রাশি রাশি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেই সতর্ক পদক্ষেপে এগোতে হচ্ছে ক্রিকেটারদের। মুমিনুল হকরা মানিয়ে নিতে চেষ্টা করছেন। ভালো দিক হলো, টেস্ট স্কোয়াডের গুরুত্বপূর্ণ আট সদস্য টি২০ খেলেননি। দেশে জাতীয় লিগের ম্যাচ খেলেছেন। স্কোয়াডের বাকি সাতজন টি২০ দলেরও সদস্য। আজ এবং আগামীকাল দুই দিনের অনুশীলনকে পুঁজি করে টেস্ট ম্যাচের পরীক্ষা দেবেন তারা।

তবে আশার বিষয়, প্রস্তুতি ম্যাচ ছাড়াই টি২০ সিরিজে ভালো ক্রিকেট খেলেছেন ক্রিকেটাররা। দিল্লিতে জয় দিয়ে সিরিজ শুরু করেন। রোববার নাগপুরে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচটি ৩০ রানে হেরে যায় ব্যাটসম্যানদের ভুলে। নাগপুরের বিদর্ভ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হাইস্কোরিং টি২০ ম্যাচে নাঈম শেখ ও মোহাম্মদ মিঠুন ৯৮ রানের জুটি গড়ে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি করেন। সেখানে মিডল অর্ডার এবং লোয়ার মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা চরম ব্যর্থতার পরিচয় দেন। লোকেশ রাহুল (৫২) ও শ্রেয়াশ আয়ারের (৬২) বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ১৭৪ রান করেছিল ভারত। ১৭৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে টাইগাররা অলআউট ১৪৪ রানে। অথচ ১৩ ওভারে তিন উইকেটে ১১০ রান করে ফেলেছিল। মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহরা উইকেট ছুড়ে না এলে ইতিহাস লেখা হতে পারত ভারতের বিপক্ষে প্রথম টি২০ সিরিজে। তবে এই ম্যাচের বড় প্রাপ্তি নাঈম শেখের ৪৮ বলে ৮১ রানের ইনিংস খেলা। স্বাগতিকরা ২-১ ব্যবধানে টি২০র সিরিজ জিতলেও বাংলাদেশ ভালো দলের স্বীকৃতি নিয়ে প্রথম টেস্টের জন্য গতকাল ইন্দোরে এসেছে। হলকার স্টেডিয়ামে আজ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত লাল বলের অনুশীলন মুমিনুলদের।

টি২০ সিরিজ শেষ করে গতকাল দেশে ফিরে গেছেন সাত ক্রিকেটার নাঈম শেখ, আফিফ হোসেন, শফিউল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, সৌম্য সরকার, আরাফাত সানি ও আবু হায়দার রনি। টেস্ট দলের সদস্য হলেও মায়ের অসুস্থতার খবর পেয়ে ছুটি নিয়ে দেশে গেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে জানা গেছে, মাকে দেখেই ভারতে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন তিনি। তাই আজ টেস্টের অনুশীলনে থাকছেন ১৪ ক্রিকেটার। এই খেলোয়াড়দের ধ্যানজ্ঞান এখন সাদা পোশাক আর লাল বলের খেলায় মানিয়ে নেওয়া। বিসিসিআই থেকে গোলাপি বল দেওয়া হলেও অনুশীলনে সেগুলো দেওয়া হবে না। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো জানান, টি২০ সিরিজ শেষ করার পরই পেছনের টেস্টে ফোকাস করছেন তারা। দলের সিনিয়র সদস্য ও টি২০ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ জানান, টেস্ট ম্যাচকে ধ্যানজ্ঞান হিসেবে নিয়েছেন।

মুমিনুল হক, সাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান, ইমরুল কায়েস, মেহেদী হাসান মিরাজ, নাঈম হাসান, আবু জায়েদ রাহি ও এবাদত হোসেনরা জাতীয় লিগে টানা ম্যাচ খেলেছেন। কেউ কেউ গোলাপি বলে প্র্যাকটিসও করেছেন। এদিক থেকে স্বস্তিতে টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক, 'আমরা যারা চার দিনের ম্যাচ খেলেছি, তাদের একটা প্রস্তুতি আছে। ভালো ব্যাপার হলো, লিগে ব্যাটসম্যানরা রানে ছিল এবং বোলাররাও উইকেটে পেয়েছে। এখানে এসে নাগপুরে দু'দিন প্র্যাকটিস করেছি। ম্যাচর আগে আরও দু'দিন পাব। আশা করি কন্ডিশনে মানিয়ে নিতে সমস্যা হবে না। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একটা টেস্ট সিরিজ আশা করছি।'

টি২০ সিরিজে দারুণ বোলিং করা পেসার আল-আমিন হোসেন টেস্টেও আছেন। তার কাছ থেকে সেরাটা আশা করছেন মুমিনুল। আল-আমিনও দলের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিতে প্রস্তুত, 'টি২০ সিরিজটা ভালো গেছে। আরও ভালো হতে পারত। তবে কন্ডিশনে মানিয়ে নেওয়ার ঝামেলা নেই। বাংলাদেশ আর ভারত তো একই রকম। আর টি২০ থেকে টেস্ট ম্যাচে যাওয়া বড় কোনো পার্থক্য দেখি না। একটা খেলা হয়েছে সাদা বলে, এবার খেলব লাল বলে। আসল কথা হলো, টেস্টে ধারাবাহিক বল করতে হবে। মেজাজ ধরে রাখতে হবে। লম্বা স্পেলে বল করতে হয়। আর আমাদের বোলিংটা ইউনিট খারাপ না। আশা করি ভালো করতে পারব।'

এই ম্যাচ দিয়ে অধিনায়ক মুমিনুলের অভিষেক। গত কিছুদিন বিসিবি একাদশ এবং 'এ' দলের হয়ে নেতৃত্বের চর্চাও করেছেন তিনি। টিম ম্যানেজমেন্টের পরামর্শেই টেস্টে অধিনায়ক করা হয়েছে মুমিনুলকে। বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান জানান, বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিতে মানসিকভাবে সম্পূর্ণ প্রস্তুত তিনি। মুশফিক, ইমরুল, সাদমানও প্রস্তুত ভালো করতে। তাদের সব ফোকাসই এখন টেস্ট ক্রিকেট ঘিরে।