দিবা-রাত্রির টেস্টে কয়টায় কোন সেশন

প্রকাশ: ১৯ নভেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: ফাইল

অস্ট্রেলিয়া ২০১৫ সালে প্রথম গোলাপি বলে টেস্ট খেলে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওই টেস্টে ৩ উইকেটে জয় পায় অজিরা। অস্ট্রেলিয়াই এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি পাঁচটি গোলাপি বলের টেস্ট খেলেছে। সবকটিতেই জয় পেয়েছে তারা। এ পর্যন্ত ১১ টেস্ট খেলা হয়েছে গোলাপি বলে। ড্র হয়নি একটি ম্যাচও। দিবা-রাত্রির এবং গোলাপি বলের টেস্ট তাই নতুন প্রতিযোগিতা, উচ্ছ্বাস নিয়ে হাজির হয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

২০১৮ সালে অ্যাডিলেডে ভারতকে দিবা-রাত্রির টেস্ট খেলার প্রস্তাব দেয় অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু ভারত সেটা নাকচ করে দেয়। ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রী সাফ জানিয়ে দেন, অন্তত ১৮ মাস প্রস্তুতি নেবে তারা। এরপরই খেলবে গোলাপি বলে দিবা-রাত্রির টেস্ট। ঘরোয়া ক্রিকেট দুলিপ ট্রফিতে গোলাপি বল চালু করা এবং বাংলাদেশের বিপক্ষে ইডেনে দিবা-রাত্রির টেস্ট খেলা তারই ধারাবাহিকতা।

টেস্ট খেলুড়ে ১২ দেশের মধ্যে আট দল এরই মধ্যে গোলাপি বলে টেস্ট খেলার স্বাদ নিয়েছে। বড় দলের মধ্যে বাকি ছিল কেবল ভারত। বাংলাদেশকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিবেশি দুই দেশ এবার সেই অভিজ্ঞতাও নিচ্ছে। বাংলাদেশ সময় দুপুর দেড়টায় শুরু হবে গোলাপি বলের দিবা-রাত্রির  টেস্ট। বাংলাদেশ সময় ৪টা ১০ মিনিটে শেষ হবে মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতি। ৪০ মিনিটের ওই বিরতি শেষে শুরু হবে দ্বিতীয় সেশন। দ্বিতীয় সেশন থেকেই জ্বলে উঠবে ফ্লাড লাইট।

এরপর বাংলাদেশ সময় ছয়টা ১০ মিনিটে দেওয়া হবে চা পানের বিরতি। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত চলবে তৃতীয় সেশন। গোলাপি বলের সিমে সেলাই বেশি তাই পেসাররা বেশি বাউন্স পাবেন। বল দ্রুত পুরনো হয় না। ওদিকে সন্ধ্যার আগে থেকেই শিশির ভূমিকা রাখবে। সেই দিক থেকে স্পিন স্বর্গ হলেও ইডেনে স্পিনাররা সুবিধা কম পাবেন। ভারত শক্তির বিচারে এগিয়ে। তবে সুযোগ থাকছে বাংলাদেশেরও। শ্রীলংকার গোলাপি বলের সাফল্য বাংলাদেশ দলকে দেবে বাড়তি প্রেরণা। গোলাপি বলে এরই মধ্যে তিন টেস্ট দুই জয় পেয়েছে তারা। একটি করে জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং নিউজিল্যান্ড।

দিবা-রাত্রির টেস্টে লাল বল দেখতে অসুবিধা হয়। রং হারালে সেটি দেখা কঠিন হয়ে পড়ে। সেজন্য উজ্জ্বল রংয়ের গোলাপি বল বেছে নেওয়া হয়েছে। এটি রং হারায় কম। আর টি-২০ ক্রিকেটের যুগে টেস্ট ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে দিবা-রাত্রির টেস্টের বিকল্প দেখেন না ক্রিকেট বোদ্ধারা। গোলাপি বলে সর্বনিন্ম রান ইংল্যান্ডের। নিউজিল্যান্ডে গিয়ে ৫৮ রানে ধসে যায় তারা। স্পিনাররা কম সুবিধা পান বলা হলেও দুবাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেবেন্দ্র বিশু ৪৯ রানে নেন ৮ উইকেট।