হারলেই বিদায়, এমন ম্যাচে জামালের ইনজুরি

প্রকাশ: ১৮ জানুয়ারি ২০২০   

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ছবি: বাফুফে

ছবি: বাফুফে

ফিলিস্তিনের কাছে হারে এমনিতেই চাপে পড়ে গেছে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবলের সেমিফাইনালে উঠতে হলে আগামীকাল শ্রীলংকার বিপক্ষে জিততেই হবে। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে বড় ধাক্কা বাংলাদেশ শিবিরে। অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার ইনজুরিতে দুশ্চিন্তা আরও বেড়ে গেছে কোচ জেমি ডের।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সবাই যখন মাঠে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে ব্যস্ত, তখন সাইডলাইনে বিষণ্ণ মাঝমাঠের কাণ্ডারি জামাল ভূঁইয়া। ফিলিস্তিনের বিপক্ষে ম্যাচে পায়ে আঘাত পেয়েছিলেন। তবে লংকান ম্যাচের আগেই দলের অধিনায়ক সুস্থ হয়ে ফিরবেন বলে বিশ্বাস টিম ম্যানেজমেন্টের।

ফিলিস্তিন ম্যাচের পর একদিন বিশ্রামে ছিলেন ফুটবলাররা। শুক্রবার সকালে অনুশীলন করে জেমি ডের দল। কিন্তু দলের সঙ্গে থাকলেও মাঠে নামেননি জামাল। নিজের ইনজুরি নিয়ে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, 'ফিলিস্তিন ম্যাচের সময় ওদের এক খেলোয়াড়ের সঙ্গে লাগলে পায়ে ব্যথা পাই। তখন থেকেই ব্যথাটা অনুভব করছি। ঝুঁকি নিতে চাইনি বলে আজকে (গতকাল) অনুশীলন করিনি। আশা করি কাল অনুশীলন করতে পারব এবং ফিট হয়ে শ্রীলংকা ম্যাচে খেলব।'

ফিলিস্তিনের কাছে হারলেও খুব একটা উদ্বিগ্ন নন বাংলাদেশ অধিনায়ক। লংকানদের হারাতে বেশ আত্মবিশ্বাসী তিনি, 'আমাদের ভুলের কারণেই ফিলিস্তিনের কাছে হেরেছি। এখন শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটি জিততে চাই। আশা করি জিততে পারব এবং সেমিফাইনালে উঠব।'

ফিলিস্তিনের পোস্টে একটি শটও নিতে পারেননি মতিন-সুফিলরা। ফরোয়ার্ডদের এমন ব্যর্থতায় হতাশা প্রকাশ করেছিলেন জেমি। যে কারণে এদিন জোর দেওয়া হয়েছে আক্রমণভাগে। মিডফিল্ড আর আক্রমণভাগের খেলোয়াড়দের মধ্যে কম্বিনেশনটা কেমন হবে সেটা নিয়ে কাজ করেছেন কোচ। একই সঙ্গে যখন ক্রস করা হবে, তখন কে উইংয়ে থাকবেন সেটাও বলে দিয়েছেন জেমি।

শ্রীলংকার ম্যাচে সুযোগগুলো কাজে লাগালে দল জিততে পারবে বলে মনে করেন মিডফিল্ডার মোহাম্মদ ইব্রাহিম, 'সুযোগ তৈরি করতেছি; কিন্তু গোল হচ্ছে না আমাদের। কোচও এই কথাটি বারবার বলেছেন। আমরা যেগুলো সুযোগ তৈরি করতে পারি, সেগুলো কাজে লাগাতে পাচ্ছি না। আশা করি শ্রীলংকার বিপক্ষে সুযোগগুলো কাজে লাগিয়ে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ব আমরা।'