খেলবেন মাশরাফি

প্রকাশ: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০       প্রিন্ট সংস্করণ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বঙ্গবন্ধু বিপিএলের আগে বলেছিলেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা নতুন বলে এখনও দেশের সেরা বোলার। অভিজ্ঞতা আর নেতৃত্বগুণেও অন্যদের থেকে এগিয়ে তিনি। জাতীয় দলে মাশরাফির বিকল্প এখনও তৈরি হয়নি। তাই নড়াইল এক্সপ্রেসকে রেখেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দল নিয়ে ভাবতে হতে পারে জাতীয় দল নির্বাচকদের। কারণ আরও আছে, মাশরাফির ব্যাপারে বিসিবির কাছ থেকে কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি তাদের। বরং একজন প্রভাবশালী বোর্ড পরিচালক গতকাল সমকালকে নিশ্চিত করেন, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে দলের নেতৃত্বে থাকবেন মাশরাফি। দুই-একদিনের মধ্যে নড়াইল এক্সপ্রেসের সঙ্গে কথা বলবেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।
বিশ্বকাপে আট ম্যাচ খেলে ৩৬১ রান দিয়ে এক উইকেট শিকার মাশরাফির। টুর্নামেন্ট চলাকালেই নড়াইল এক্সপ্রেসের অবসর নিয়ে কথা ওঠে। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ইংল্যান্ডে সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, দেশে সিরিজ আয়োজন করে ঘটা করে বিদায় দেবেন মাশরাফিকে। এজন্য গত বছর আগস্ট-সেপ্টেম্বরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজও করতে চেয়েছিল বিসিবি। অবসর সিদ্ধান্তে মাশরাফি সময় চেয়ে নিয়েছিলেন বোর্ড সভাপতির কাছ থেকে। বিপিএল চলাকালে মাশরাফি সংবাদ সম্মেলনে জানিয়ে দেন, এখনই খেলা ছাড়ছেন না তিনি। যতদিন ফিট থাকবেন, খেলা চালিয়ে যাবেন। তবে জাতীয় দলে নেওয়া না নেওয়ার বিষয়টি নির্বাচকদের ওপর ছেড়ে দিয়েছেন তিনি। অধিনায়ক প্রশ্নে বলেছিলেন, অফিশিয়ালি এখনও ওয়ানডে অধিনায়ক তিনি। বিসিবি পরিচালকদের প্রভাবশালী অংশ মনে করে, মাশরাফিকে জাতীয় দলের প্রয়োজন আছে। বিশেষ করে সাকিব আল হাসান নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে জাতীয় দলে ফিরে না আসা পর্যন্ত মাশরাফিকে রাখার পক্ষে তারা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন পরিচালক বলেন, 'অধিনায়ক মাশরাফির বিকল্প নেই। সাকিব না থাকায় টেস্ট ও টি২০ দলে নতুন অধিনায়ক করা হয়েছে। এ মুহূর্তে ওয়ানডে দলে আরেকজন নতুন অধিনায়ক করতে চাই না। মাশরাফি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অব্যশ্যই খেলবে।'
যদিও বিসিবির প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু এ ব্যাপারে দ্বিধান্বিত, 'মাশরাফি তো খেলার মধ্যে নেই। হঠাৎ করে এসে তো খেলা সম্ভব নয়।' কিন্তু তিনি যে ব্যাখ্যাই দেন না কেন, বর্তমান জাতীয় দলের অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচকপ্রধানের সব দাবি মেনে নেওয়ার মতো অবস্থায় নেই বিসিবির ঊর্ধ্বতন মহল। তারা যে কোনো পরিস্থিতিতে 'দলের জয়' দেখতে চান। তাদের বিশ্বাস, সাকিবের অনুপস্থিতিতে ওয়ানডেতে এখনও দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার মতো অবস্থায় আছেন মাশরাফি। দলের কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকেও এই বার্তা দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে মাশরাফির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎও হয়েছে কোচের।
এ মুহূর্তে নতুন কোচিং স্টাফের অধীনে বাজে সময় পার করছে জাতীয় দল। ভারতের বিপক্ষে টি২০ সিরিজে ভালো খেললেও গত মাসে পাকিস্তান সফরে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে টাইগাররা। আফগানিস্তান, ভারতের পর পাকিস্তানের কাছেও টেস্টে বাজেভাবে হেরেছেন মুমিনুল হকরা। এ অবস্থায় ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজে ঝুঁকি নিতে চান না কর্মকর্তারা। ফিট থাকলে মাশরাফির ওপরই আস্থা রাখার পরিকল্পনা বিসিবি নীতিনির্ধারকদের। দু-একদিনের মধ্যে মাশরাফির ব্যাপারে নির্বাচকদের একটা দিকনির্দেশনা দেওয়া হতে পারে।
বাংলাদেশ দল শেষ ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে গতবছর জুলাই মাসে তামিম ইকবালের নেতৃত্বে। ইনজুরির কারণে শ্রীলংকায় খেলতে যাননি মাশরাফি। তিনি শেষ ওয়ানডে খেলেছেন আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপে। জিম্বাবুয়ে সিরিজে থাকলে প্রায় আট মাস পর ওয়ানডে খেলবেন নড়াইল এক্সপ্রেস। বিশ্বকাপের পর বিপিএল টি২০ টুর্নামেন্ট ছাড়া আর কোনো ক্রিকেট খেলার সুযোগ হয়নি তার। বিপিএলের শুরুতে ভালো করতে না পারলেও পরে ছন্দে ফিরেছিলেন। ১৩ ম্যাচে আট উইকেট শিকার তার। ইকোনমি ৭.৬২।
মাশরাফির ওয়ানডে দলে থাকার ব্যাপারে খালেদ মাহমুদ সুজনের অভিমত জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, 'মাশরাফি অধিনায়ক। জিম্বাবুয়ে সিরিজে তার থাকাটা স্বাভাবিক। যতদিন ফিট থাকবে, মাশরাফি হয়তো খেলবে। যদিও তরুণ ক্রিকেটারদের সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে হবে, তা না হলে জাতীয় দলে নতুন খেলোয়াড় সৃষ্টি হবে না। সিনিয়ররা তো কোনো না কোনো সময় অবসরে যাবে, তাদের বিকল্প এখন থেকেই তৈরি করতে হবে। তবে আমি মনে করি, ফিট থাকলে মাশরাফি খেলবে। বিপিএলে তো ভালোই খেলেছে সে।' বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে স্বেচ্ছায় সরে গেছেন মাশরাফি। জিম্বাবুয়ে সিরিজ থেকেও নিজে থেকে সরে না দাঁড়ালে খেলার সম্ভাবনা বেশি তার। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে
সিরিজে মাশরাফি বিসিবির ভাবনায় থাকলে শিগগিরই তাকে জানিয়ে দেওয়া প্রয়োজন। এতে করে খেলার জন্য অন্তত ১৫ দিন প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ পাবেন নড়াইল এক্সপ্রেস। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ হবে সিলেটে ১, ৩ ও ৬ মার্চ। তার আগে ২২ থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি একমাত্র টেস্ট ম্যাচ হবে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে ক্যাম্প শুরুর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

বিষয় : মাশরাফি