বিসিএলের ফাইনাল শেষ করেই ম্যাচ রেফারির মুখোমুখি হতে হয়েছিল চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণাঞ্চলের পেসার আল আমিনকে। মাঠে প্রতিপক্ষ দলের ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ আশরাফুলের সঙ্গে অখেলোয়াড়ি আচরণ করায় শাস্তিও হয়েছে তার। ম্যাচ ফির পঞ্চাশ শতাংশ জরিমানাও হয়েছে। বুধবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে তাকে দেখার পরই এ নিয়ে বেশ হাসিঠাট্টা হয়। এক ফাঁকে কথা ওঠে, চার বছর পর ওয়ানডে দলে ফেরার ইস্যুতে।

সেখানেই ডানহাতি এ পেসার জানান ইচ্ছার কথা। তিনি বলেন, প্রত্যাবর্তনের সিরিজে খেলার সুযোগ পেলে জায়গা ধরে রাখার মতো পারফরম্যান্স করতে চান। আল আমিন শেষ ওয়ানডে খেলেন ২০১৫ সালের নভেম্বরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। মাঝের চার বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের কোনো সংস্করণেই খেলার সুযোগ হয়নি তার। গত বছর নভেম্বর-ডিসেম্বরে ভারতের বিপক্ষে টি২০ সিরিজ দিয়ে জাতীয় দলের প্রত্যাবর্তন তার। টেস্ট দলেও ছিলেন তিনি। কলকাতা টেস্টে ভালো বোলিংও করেছেন।

পাকিস্তান সফরে টেস্ট দলে নেওয়া হলেও ম্যাচ খেলেননি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের স্কোয়াডে রাখা না হলেও ওয়ানডে দলের সদস্য তিনি। এ সুযোগ কাজে লাগাতে চান আল আমিন, 'ক্যারিয়ার যখন শুরু করেছিলাম, টানা চলতে থাকলে এতদিনে দলে যথেষ্ট প্রতিষ্ঠিত থাকতাম। মাঝে মোটামুটি বিরতি গেছে। তারপরও চেষ্টা করেছি। এখন সুযোগ এসেছে। সবসময় চেষ্টা করি সুযোগ কাজে লাগাতে। টেস্ট ও টি২০-তে সুযোগ পেয়েছি, দুটিতেই মোটামুটি ভালো করেছি। ওয়ানডেতে আরেকটি সুযোগ এসেছে। একাদশে জায়গা পেলে চেষ্টা করব ভালো করার।'

কোচ রাসেল ডমিঙ্গো চান আল আমিনকে সাদা বলে খেলাতে। আর আল আমিন চান তিন সংস্করণেই দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে। টেস্টে নিয়মিত সুযোগ না পেলেও হাল ছাড়বেন না বলে জানান তিনি, 'আমাকে সবসময় প্রস্তুত থাকতে হবে। সাদা বল বা লাল বল আলাদা করে ভাবলে হবে না। একজন ক্রিকেটারের সবসময় প্রস্তুত থাকা উচিত। বাংলাদেশে যখন-তখন সুযোগ আসে। টেস্টে এখন আমাকে বিবেচনা করা হচ্ছে না। হয়তো আবার বিবেচনা করবে। কারও ইনজুরি বা কোনো কারণে সুযোগ আসতে পারে। সেসব মাথায় রেখেই নিজেকে ফিট ও প্রস্তুত রাখব।'