লজ্জা কিসের, আমি কি চোর: মাশরাফি

প্রকাশ: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০     আপডেট: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ছবি: ইউসূফ আলী

ছবি: ইউসূফ আলী

ফুরফুরে মেজাজেই ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে উত্তর দেওয়া শুরু করলেন বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। দীর্ঘদিন পর এভাবে সংবাদ সম্মেলনে আসলেন তিনি। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের সময় সর্বশেষ জাতীয় দলের ম্যাচ নিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন টাইগার অধিনায়ক। মধ্যে গেছে বিপিএল।  এবার আবার জিম্বাবুয়ে সিরিজ দিয়ে। যেটা আবার মাশরাফির নেতা হিসেবে ‘শেষ’ সিরিজ ধরা হচ্ছে।  তবে এই শেষটা সেভাবে ছুঁয়ে গেল না অধিনায়কের।

বরং ছুঁয়ে গেল সাংবাদিকের করা তীরের মতো একটা প্রশ্ন।  তিনি বিশ্বকাপে উইকেট (এক উইকেট নিয়েছিলেন) পাননি। বিপিএলেও তার পারফরম্যান্স আহামরী ছিল না। মাঠে এই উইকেট না পাওয়া মাশরাফির নিজের কাছে ‘লজ্জার’ কি-না। প্রশ্নটা শুনেই চোয়াল শক্ত করে ফেললেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক। তার আগে মুশফিকের পাকিস্তান সফরে যাওয়া না যাওয়া নিয়ে, নিজের পাকিস্তান সফরের পরিকল্পনা নিয়ে যুক্তি দিয়ে বেশ সাবলিলভাবে উত্তর দিয়েছেন ম্যাশ।

তিনি বলেন, ‘কোন একটা সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বিসিবির উচিত দশবার ভাবা।  বিসিবি পাকিস্তানে ক্রিকেটারদের শতভাগ নিরাপত্তা দেওয়ার কথা চিন্তা করছে। ক্রিকেটারদের কিছু হয়ে গেলে সেটা বোর্ডকে বেশি পোড়াবে। তারপরও বোর্ডের উচিত ক্রিকেটারদের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানানো। এর আগে যেহেতু বোর্ড ক্রিকেটারদের ওই সুযোগটা দিয়েছে। পাকিস্তানে না যাওয়ার জন্য জোরাজুরি করবে না।  সে হিসেবে আমি মনে করি, মুশফিকের সিদ্ধান্তকে সম্মান দেওয়া উচিত। আর পাকিস্তান সফরে নিয়ে বোর্ড আমার সঙ্গে আলোচনা করলে তখন আমি এ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

এরপরই মাশরাফির দিকে ধেয়ে যায় ওই প্রশ্ন। উত্তরে মাশরাফি বলেন, ‘কেন? আমি কি চুরি-চামারি করছি। দেশের জন্য খেলতে এসেছি। আমি তো আত্মসম্মান বিকিয়ে দিতে আসিনি। মাঠে ক্রিকেটারের খারাপ সময় আসতে পারে। একজন উইকেট না পেতে পারেন।  তার জন্য খারাপ লাগবে। বোর্ড উইকেট না পাওয়ার জন্য আমাকে বাদ দিতে পারে।  কিন্তু তার জন্য আমার লজ্জা কেন লাগবে। আমি তো অন্য দেশের হয়ে খেলছি না। লজ্জা পাওয়ার মতো কিছু করছি না।’

বাংলাদেশ রোববার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুপুর একটায় সিলেটে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে খেলবে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ভালো। তারপরও আঁটঘাট বেধে নামবেন বলে জানান মাশরাফি, ‘জিম্বাবুয়ের কাছেও আমরা হারতে পারি। এমন নয় যে, আমরা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আগে কখনো হারিনি। এমনকি যদি আমরা শেষ চার-পাঁচটা ম্যাচের দিকে তাকায় তাহলে দেখবো হারতে হারতে জিতেছি আমরা। তার মানে আমরা জিম্বাবুয়ের কাছে ওই ম্যাচে হারতে পারতাম বা তারা আমাদের হারাতে পারে।’