বিশ্বকাপ নিয়ে আশাবাদী অস্ট্রেলিয়া, চিন্তাও আছে

প্রকাশ: ০৬ এপ্রিল ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: ক্রিকবাজ

ছবি: ক্রিকবাজ

করোনাভাইরাসের কারণে অস্ট্রেলিয়ায় আগামী অক্টোবরের টি-২০ বিশ্বকাপের ওপর শঙ্কার কালো মেঘ। তবে বিশ্বকাপের এখনও সাড়ে ছয় মাস বাকি। আয়োজকরা তাই এখনই আশা ছাড়ছেন না। কিন্তু সমস্যাটা বৈশ্বিক। প্রাণঘাতী এই করোনার প্রাদুর্ভাবে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। ইউরো, কোপা আমেরিকা, অলিম্পিকের মতো বড় বড় আসর এরই মধ্যে পিছিয়ে আগামী বছরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। টি-২০ বিশ্বকাপের আয়োজক অস্ট্রেলিয়াকেও তাই ভিন্ন চিন্তা মাথায় রাখতে হচ্ছে।

তবে আইসিসি এখন অপেক্ষা করছে এবং পরিস্থিতি কি হয় সেদিকে তাকিয়ে আছে। এতো দ্রুত তারা টি-২০ বিশ্বকাপের মতো আয়োজন স্থগিত কিংবা পিছিয়ে দেওয়ার মতো সিদ্ধান্ত নিতে চায় না। আগামী বছর আবার ভারতে টি-২০ বিশ্বকাপ আছে। সূচি বিভ্রাটের দিকেও তাদের খেয়াল রাখতে হচ্ছে। এখন তাই আশা করা ছাড়া কোন পথ খোলা নেই ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসির সামনে।

আইসিসির টি-২০ বিশ্বকাপ কমিটির সমন্বয়ক নিক হকলি এএপিকে বলেন, 'বিশ্বকাপটা যাতে পূর্ব-পরিকল্পনা মতো হয় সেজন্য যেকোন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আমরা সময় নিচ্ছি। সুতরাং এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক কোন সিদ্ধান্ত আসার সম্ভাবনা কম। আশা করছি এই সংকট বিশ্ব কাটিয়ে উঠবে এবং আমরা বিশ্বকাপ আয়োজর করতে পারবো। তবে সম্ভব্য সকল ভিন্ন পরিস্থিতির কথাও আমরা ভেবে রাখছি। বিশ্বকাপ নিয়ে অবশ্যই আমরা বিচক্ষণ একটা সিদ্ধান্তে আসবো।'

ওই কর্মকর্তা জাননা, সিদ্ধান্ত যাই হোক- আইসিসি, আয়োজক এবং আইসিসির পূর্ণ সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করেই নেওয়া হবে। যদি কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রয়োজন হয়, পরিস্থিতি ভিন্ন দিকে যায় এবং সে কারণে কোন সিদ্ধান্ত হয় তবে সকলকে জানানো হবে বলেও উল্লেখ করেও নিক হকলি।

অস্ট্রেলিয়ায় টি-২০ বিশ্বকাপের সময়টা খুব হিসেব করে ফেলা হয়েছিল। অস্ট্রেলিয়ার ফুটবল এবং রাগবি লিগ অক্টোবরের মাঝামাঝিতে টি-২০ বিশ্বকাপ শুরুর আগেই শেষ হয়ে যাবে। এতে আয় বেশি হবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড ও আইসিসির। কিন্তু করোনার কারণে ফুটবল ও রাগবি থেমে আছে। করোনা সংকট কাটিয়ে উঠলে অক্টোবরে তাই ফুটবল ও রাগবি আবার শুরু হতে পারে। করোনার প্রাদুর্ভাব কমলে ঠিক সময়ে বিশ্বকাপ আয়োজনের আশা হকলির।

তিনি বলেন, 'লোকজন বিশ্বকাপ দেখতে ভালোবাসে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় খেলা। এই বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়ায় না হলে আবার একটা বিশ্বকাপের স্বাগতিক হতে ১০ থেকে ২০ বছর লেগে যেতে পারে। আমরা সম্প্রচার মাধ্যমের থেকে ভালো সাড়া পেয়েছি। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কাটলে অস্ট্রেলিয়ায় টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনের ব্যাপারটি সবচেয়ে এগিয়ে আছে।'